আমাদের আদরের সন্তান আমাদের শত্রু হচ্ছে নাতো!!

0
149

 

সময় সংবাদ বিডি-

ঢাকাঃ আমরা আমাদের সন্তান কে ভালোবাসবো এটাই স্বাভাবিক। তার জন্য সুন্দর সুন্দর জামা কাপড়, খেলনা নিজের সখ মত ক্রয় করবো এটাও স্বাভাবিক,খাওয়াতে গেলে মিউজিক (Rhymcs), কার্টুন প্লে করে নেচে গেয়ে খাওয়াবো খুব আনন্দ খুব আদরী লাগে।। কিন্তু যেকোনো কিছু শিক্ষা দেওয়ার আগে আমাদের চিন্তা করা উচিৎ আমরা মুসলিম।। এমন কিছুতে আমাদের শিশুদের অভ্যস্ত না করা যাতে করে শিশুটি শয়ত্বানি কাজে অভ্যস্ত হয়ে পরে, তাকে আয়ত্ব করা কষ্ট সাধ্য হয়ে পরে।। আমাদের উচিৎ, সন্তানকে মুসলিম হিসাবে গড়ে তোলার চেষ্টা করা।। ইন’শা আল্লাহ।।
.
রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ প্রতিটি শিশু ইসলামের ফিত্বরতের উপর জন্মগ্রহণ করে, আর তার মাতা-পিতা তাকে ইহুদি, মজুসি (অগ্নিপূজক) অথবা খৃষ্টান বানায় [ বুখারি ও মুসলিম ]
.
শিশুরা কাঁদা মাটির মতো ওদের যা শিক্ষা দেওয়া হবে তাতেই তারা অভ্যস্ত হবে।। ইহুদী খৃষ্টানদের কৃষ্টি কালচার (বিভিন্ন রকম বিধর্মিদের দিবস) থেকে নিজেদের সন্তানদের দূরে রাখতে হবে।। মহান আল্লাহ তায়ালার অন্যতম নেয়ামত হলো সন্তান-সন্ততি।। আনুগত্যশীল সন্তান দুনিয়া এবং আখিরাতে মাতা-পিতার মুখ উজ্জ্বল করবে।। আর অবাধ্য সন্তানের জন্য পদে পদে মাতা-পিতাকে অপমানিত হতে হবে।।
.
সন্তানকে সন্তানের মতো গড়ে না তুলতে পারলে সন্তান আল্লাহ্‌র তরফ থেকে শত্রুতে রূপান্তরিত হবে এবং আমাদের লাঞ্চিত হতে হবে জাহান্নামে।। নিজেদের সন্তাকে ইহুদী নাসাদের কৃষ্টি কালচার থেকে দূরে সরিয়ে রাখতে আপ্রাণ চেষ্টা করতে হবে।। ইন’শা আল্লাহ্‌।।
.
আল্লাহ্‌ বলেনঃ‘হে মুমিনগণ! তোমাদের স্ত্রী ও সন্তান-সন্ততিগণের মধ্যে কেউ কেউ তোমাদের শত্রু; অতএব তাদের সম্পর্কে তোমরা সতর্ক থেকো। [আত্ব-তাগাবুনঃ১৪]
.
সন্তানকে সুশিক্ষায় শিক্ষিত ও আদর্শবান করে গড়ে তোলার জন্য আমরা যারা পিতা-মাতা তারাই প্রধানত দায়িত্বশীল। কেননা পারিবারিক স্কুলেই তার শিক্ষার হাতে খড়ি।। সেই কারনে আমরা যারা পিতা-মাতা আছি, আমাদের দায়িত্ববান এবং সচেতন হতে হবে।। অন্যথা বিচার দিবসে কঠিন প্রশ্নের সন্মুখিন হতে হবে।। সন্তানের প্রতি পিতা-মাতার সবচেয়ে বড় দায়িত্ব ও কর্তব্য হচ্ছে তাদেরকে আর্দশ সন্তান হিসাবে গড়ে তোলা।। আর ছেলে-মেয়েকে শিক্ষিত ও আদর্শবান করে গড়ে তোলার মূল উদ্দেশ্য হবে তাদেরকে জাহান্নাম হতে রক্ষা করা।।
.
আল্লাহ্‌ বলেনঃ‘হে ঈমানদারগণ! তোমরা নিজেদেরকে ও স্বীয় পরিবারবর্গকে আগুন (জাহান্নাম) হতে রক্ষা কর, যার ইন্ধন হবে মানুষ ও পাথর। সেখানে অত্যন্ত কর্কশ, রূঢ় ও নির্মম স্বভাবের ফেরেশতা নিয়োজিত থাকবে, যারা কখনই আল্লাহর কথা অমান্য করে না এবং নির্দেশ অনুযায়ী কাজ করে’ [সূরা তাহরীমঃ ৬]
.
হে আল্লাহ্‌ ! আপনার নিকট থেকে আমাকে পূত-পবিত্র সন্তান দান করুন। নিশ্চয় আপনি প্রার্থনা কবুলকারী।আমীন

আবু লাইবাহ (শুভ)

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here