আ.লীগের কাউন্সিল, বাড্ডায় সাবেক ছাত্রনেতাদের মূল্যায়ন সম্ভাবনা

0
2875
ছবি- ১৯৯০ সাল

ডেস্ক নিউজ, সময় সংবাদ বিডি-
ঢাকাঃ ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের কাউন্সিল এবছরের আগামী অক্টোবরের দিকে অনুষ্ঠিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

সেই লক্ষেই সারাদেশে তৃণমূল নেতাকর্মীদের সু-সংগঠিত করে দলকে সাংগঠনিকভাবে এগিয়ে নেয়ার কাজ শুরু করেছে দলটির কেন্দ্রীয় নেতারা।

সুত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে ক্ষমতায় থাকা দল আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী কাউন্সিলে তাদেরকেই মূল্যায়ন করবেন যারা দলের মূল ধারার রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত থেকে দলের দুঃসময়ে বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। এবং ত্যাগ শিকার করে দলকে ভালোবেসেছেন।

এদিকে আগামী কাউন্সিলে রাজধানীর ঢাকা মহানগর উত্তর এর অন্তর্ভুক্ত বাড্ডা থানা আওয়ামী লীগের কমিটিতে সাবেক ছাত্রনেতাদের মূল্যায়নে অপার সম্ভাবনা রয়েছে বলে দলীয় সুত্রে জানা গেছে।

ছবি- ১৯৯৩ সাল

সেক্ষেত্রে ১৯৮০/১৯৯০ দশকের ততকালীন বৃহত্তর গুলশান থানা ছাত্রলীগের ডাকসাইটে নেতারা যারা বৃহত্তর গুলশানের সকল আন্দোলন সংগ্রামে বহু নির্যাতন ভোগ করেছেন। এবং সামনে থেকে রাজপথে নেতৃত্ব দিয়েছেন। আগামী কাউন্সিলে তাদের অবস্থান কোথায় থাকবে? এবং কিভাবে মুল্যায়ন করা হবে? নাকি বর্তমান কমিটির ন্যায় আবারো সরিয়ে দেয়া হবে? তা নিয়ে বর্তমানে বাড্ডা ও ভাটারা থানার নেতাকর্মীদের মাঝে ব্যাপক গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বাড্ডা ও ভাটারা থানার বর্তমান কমিটি ঘোষণার আগের কমিটিতে বিভিন্ন পদে সাবেক এই ছাত্রনেতাদের মূল্যায়ন ছিল।

সাবেক ছাত্রনেতাদের কিছু অংশের বর্তমান ছবি

কিন্তু পরবর্তী সময়ে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন বর্তমান ঢাকা-১১ আসনের সংসদ সদস্য এ কে এম রহমতুল্লাহ। আর এর পরেই দলে গ্রুপিংয়ের কারনে পরবর্তী কাউন্সিলে সকল ছাত্রনেতাদের বাদ দিয়ে নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়।

সাবেক ছাত্রনেতারা হলেনঃ

মো. ফারুক মিলন
সাবেক সভাপতি (১৯৮৯-১৯৯৩), বৃহত্তর গুলশান থানা ছাত্রলীগ।

হাজী বিল্লাল হোসেন
সাবেক সাধারণ সম্পাদক(১৯৯৩), বৃহত্তর গুলশান থানা ছাত্রলীগ। বর্তমান ভাটারা থানা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি।

হাফিজুর রহমান ইকবাল
সাবেক সাধারণ সম্পাদক(১৯৮৯), বৃহত্তর গুলশান থানা ছাত্রলীগ।

ফরিদ আহমেদ
সাবেক সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক(১৯৯৫), বৃহত্তর গুলশান থানা ছাত্রলীগ।

ওয়াসিকুর রহমান বাবু
সাবেক সভাপতি (২০০৮), বাড্ডা থানা ছাত্রলীগ।

শেখ সেলিম
সাবেক সভাপতি, বাড্ডা থানা ছাত্রলীগ। বর্তমান কাউন্সিলর ৩৮ নং ওয়ার্ড।

হাজী আব্দুস সাত্তার
সাবেক সাধারণ সম্পাদক(২০০৮), বাড্ডা থানা ছাত্রলীগ।

হাজী ফারুক আহমেদ
সাবেক সভাপতি(১৯৯০), বৃহত্তর সাতারকুল ইউনিয়ন ছাত্রলীগ।

তোতন
সাবেক সাধারণ সম্পাদক(১৯৯০), বৃহত্তর সাতারকুল ইউনিয়ন ছাত্রলীগ।

মাহবুবুর রহমান পনু
সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক(১৯৯০), ঢাকা মহানগর ছাত্রলীগ।

গাজী মুজিবুর রহমান মুজিব
সাবেক সভাপতি(১৯৯১), মোহাখালী ৭৩ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগ।

গাজী নাসিম
সাবেক ছাত্রনেতা(১৯৯০), গুলশান থানা ছাত্রলীগ।

নাজু
সাবেক সভাপতি(১৯৯০), রামপুরা ওয়ার্ড ছাত্রলীগ।

এছাড়াও আরো অনেক সাবেক ছাত্রনেতা রয়েছেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here