গাজীর ছোঁয়ায় বদলে যাচ্ছে রূপগঞ্জ

0
189

সুমন মজুমদার, সময় সংবাদ বিডি-

রূপগঞ্জ প্রতিনিধিঃ-নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে বিভিন্ন মেগা প্রকল্পের অধিনে চলছে ব্য্পকউন্নয়ন। গাজীর ছোঁয়ায় বদলে যাচ্ছে রূপগঞ্জ, চেনাই যাচ্ছে না।এখানকার -রাস্তা ঘাট,ব্রীজ,কালভার্ট, ফাইওভারসহ বিভিন্নউন্নয়নের কাজ প্রায় শেষের পথে। নারায়ণগঞ্জ-১ আসনের সংসদসদস্য গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতীকের আন্তরিক প্রচেষ্টায়আওয়ামীলীগ সরকারের গত ৯ বছরে উন্নয়ন কর্মকান্ডে রূপগঞ্জউপজেলার চিত্রে এক অনন্য রূপ নিয়েছে। বিভিন্ন মেগা প্রকল্পের মধ্যেনির্মাণাধীন ভুলতা ৩ তলা ফ্ল্ইাওভার ও শীতলক্ষ্যা সেতুর কাজ প্রায়শেষ। চলতি বছরই এগুলো উদ্বোধন করার কথা রয়েছে। এগুলো উদ্বোধনেরূপগঞ্জের, চিত্র পুরোপুরি বদলে যাবে। বর্তমান সরকারের আমলেউপজেলায় ৩২’শকোটি টাকার উন্নয়নের কাজ হয়েছে।

তার মধ্যে ১হাজার ৮’শ কোটি টাকার কাজ সড়ক নির্মাণে রূপগঞ্জ উপজেলাকেএক অন্যরকম রূপ এনে দিয়েছে। সড়ক, কালর্ভাট, ব্রীজ সংস্কার ও নতুনব্রীজ নির্মাণে নতুন সাজে সেঁজেছে রূপগঞ্জ। নারায়ণগঞ্জ-১(রূপগঞ্জ) আসনের এমপি গোলাম দস্তগীর গাজীর (বীর প্রতীক) প্রতিনিয়তই এলাকার উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন খাত থেকে বরাদ্দআনতে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে ছুটে চলছে। তার কর্মতৎপরতায় বর্তমানসরকারের উন্নয়নে রূপগঞ্জ এগিয়ে চলছে বলে সাধারণ মানুষের দাবী।বর্তমান মহাজোট ক্ষমতায় আসার পর ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক ও ঢাকা চট্রগ্রাম, হাইওয়ে সড়কের যানজট নিরশনে উপজেলার ভুলতাএলাকায় ফ্লাইওভার নির্মাণের জন্য গোলাম দস্তগীর গাজী উদ্যোগনেন।

তিনি ভুলতা এলাকায় ফ্লাইওভার নির্মাণের দাবী জাতীয়সংসদে তুলে ধরে একাধিকবার বক্তব্যও রেখে সরকারের কাছ থেকে ভুলতাফ্লাইওভার নির্মাণের উদ্যোগ নিতে বাধ্য করান। সরকারি অর্থায়নে২৪০ কোটি ৬লাখ টাকা ব্যয়ে ফ্লাইওভারটির নির্মাণকাজ চলতিবছরের জুন মাসে শেষ হবে বলে আশা করলেও হয়তো ডিসেম্বর মাসেশেষ হবে এমনটাই ধারনা করছেন কর্তৃপক্ষ। এই ফ্লাইওভারটিবাস্তবায়ন শেষ হলে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের রূপগঞ্জ উপজেলার ভুলতাগাউছিয়া এবং গোলাকান্দাইল এলাকার কোনো ধরনের যানজট থাকবেনা বলে সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলীরা মনে করেন। নারায়ণগঞ্জ জেলা নির্বাহীপ্রকৌশলী বলেন ফ্লাইওভারের পিলার,গার্ডার,গ্যাংরোড, ড্রেনেজ,পাইলিং,র্পাকওয়ের কাজ প্রায় শেষ।

১ দশমিক ২৩৮ কিলোমিটারদৈর্ঘের এই উড়াল সেতু নির্মাণে ব্যয় হবে ২৪০ কোটি টাকা। এরমধ্যে ঢাকা বাইপাস ও ঢাকা সিলেট মহাসড়কের, গোলাকান্দাইলঅংশে ব্যয় হবে ১১২ কোটি টাকা এবং অন্যান্য কাজে ব্যয় হবে১২৭কোটি টকা। প্রকল্প পরিচারক রিয়াজ হোসেন বলেন, উড়াল সেতুর৭৫ভাগ কাজ ইতিমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। সেতুর ঢাকা চট্রগ্রামঅংশের অক্টোবর মাসেই খুলে দেয়ার কথা রয়েছে। অপরদিকে প্রায় এক’শকোটি টাকা ব্যয়ে শীতলক্ষ্যা নদীর রূপগঞ্জের মুড়াপাড়ায় সেতুনির্মানের কাজ ৯৫ ভাগ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এ সেতুর নির্মাণকাজ শেষ হলে শীতালক্ষ্যা নদীর দুই পাড়ের মানুষের ভ্রুাতৃত্বের বন্ধনআরো দৃঢ় হবে। সেতু নির্মাণে দীর্ঘ দিনের অবহেলিত এলাকারমানুষের মুখে হাসি ফুটবে। এখানকার মানুষের ব্যবসা, বাণিজ্য,শিল্প কারখানার মালামাল পরিবহনে সময় ও ব্যয় কমে আসবে কারখানার শ্রমিক, কর্মচারী, মালিক ও এলাকাবাসী লাভবান হবেন।এছাড়াও ডেমরা, রূপগঞ্জ-কালীগঞ্জ সড়ক ও রূপসী-মুড়াপাড়া-কাঞ্চনসড়ক প্রশস্ত করায় যোগাযোগের ক্ষেত্রে রূপগঞ্জে নতুন দিগন্তেরসূচনা হবে। এ ছাড়া ডেমরা-নগরপাড়া-কামশাইর গাজী বাইপাসসড়কে ওই অঞ্চরের ১৭টি গ্রামের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন শুরুহয়েছে। তারাবো পৌরসভায় সড়ক ও গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়নের২৮ কোটি ৩২ লক্ষাধিক টাকার কাজ সম্পন্ন হয়েছে। মুড়াপাড়াবাজারে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স নির্মাণ,রেজিস্টার্ড বেসরকারিপ্রাথমকি বিদ্যালয়কে সরকারিকরণ, মুড়াপাড়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ওমুড়াপাড়া পাইলট হাইস্কুল সরকারিকরণ, গাজী অডিটোরিয়ামনির্মাণ, উপজেলার পরিষদ কমপ্লেক্স নির্মাণ এবং উপজেলার সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠাণকে এমপিওভুক্ত করা হয়েছে।
টিআর ও কাবিখা প্রকল্পেগ্রামীণ, অবকাঠামোর নজিরবিহীন উন্নয়নে দেশের দৃষ্টান্ত এখনরূপগঞ্জ উপজেলা। রূপসী-মুড়াপাড়া-কাঞ্চন সড়কটি এশিয়ান
ডেভেলপম্যান্ট সোসাইটির অর্থায়নে ৪ লেনে উন্নীত করার জন্য২০১৭-১৮অর্থ বছরে ২শ’ ৫০কোটি টাকার বাজেট এসেছে। আবারশীতলক্ষ্যার পশ্চিমপাড় এলাকার ডেমরা-রূপগঞ্জ,কালীগঞ্জ সড়কেরপূর্বাচল উপশহর ৪নং সেক্টর পর্যন্ত ২১ কিলোমিটার সড়কেরউভয়পাশে ৩ফুট করে প্রশস্ত করার কাজ চলছে। আওয়ামীলীগ সরকারেরআমলে ৩২’শ কোটি টাকার সড়ক ও সেতু নির্মাণে রূপগঞ্জের চিত্রএখন বদলে যাচ্ছে। নারায়ণগঞ্জের এমপি গোলাম দস্তগীর গাজী (বীরপ্রতীক) জনগণের সাথে থেকে এ ভাবেই উন্নয়নমূলক কাজ করে যেতেচায়।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here