চট্টগ্রাম কাস্টমসে শুল্ক ফাঁকি ঠেকানো যাচ্ছেই না

0
157

iiiiiiiiiiiiiiiiiiiiiiiiiiiiiiiiiiiiiiiiস্টাফ রিপোর্টার, সময় সংবাদ বিডি-

ঢাকা: চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউজে কোনোভাবেই ঠেকানো যাচ্ছে না শুল্ক ফাঁকির কারসাজি। মিথ্যা ঘোষণায় আনা পণ্যসামগ্রী কারসাজির কারণে শুল্ক ফাঁকিতে পড়ছে কাস্টমস।

সংশ্লিষ্টদের মতে, ডাটা সংরক্ষণ ও আন্তর্জাতিকভাবে শেয়ারিং পদ্ধতি মজবুত না হওয়ায় এ ঘটনা ঘটছে। গত বছর চট্টগ্রাম বন্দরে মিথ্যা ঘোষণায় আমদানি করা ১২টি অবৈধ চালানের বিপরীতে কয়েক কোটি টাকার রাজস্ব ফাঁকির অপচেষ্টা ধরা পড়ে।

চট্টগ্রাম কাস্টমসের যুগ্ম কমিশনার মুহাম্মদ রইচ উদ্দিন খান এ প্রসঙ্গে বলেন, ডাটা অ্যানালাইসিস ফর বর্ডার ম্যানেজমেন্ট বাস্তবায়ন হলে জালিয়াতির ঘটনা কমবে। মিথ্যা ঘোষণায় পণ্য আমদানি বা রপ্তানির সুযোগ আর থাকবে না।

যে দেশ থেকে পণ্য আসবে এবং যে দেশে পণ্য যাবে দুটো ক্ষেত্রেই ডাটা সংরক্ষণ পদ্ধতি শক্তিশালী করা হবে জানিয়ে মুহাম্মদ রইচ উদ্দিন খান বলেন, তাতে মনিটরিং সহজ হবে। তাতে কাস্টম ঘিরে জালিয়াতি ও কারসাজির দিন শেষ হয়ে যাবে।

কাস্টম সূত্র  জানায়, উচ্চহারের শুল্কায়নযোগ্য পণ্যসামগ্রীকে কম শুল্ক হারের, নিম্নতম স্তরের এমনকি নামমাত্র বা শূন্য শুল্কহারের পণ্য হিসেবে আমদানির আনুষঙ্গিক ডকুমেন্টে ঘোষণা দেয়া হয়ে থাকে। তাছাড়া ডকুমেন্টে এক পণ্যের নামে আরেক ধরনের পণ্যের ঘোষণা দেয়া হয়। গত বছর চট্টগ্রাম বন্দরে এমন ১২টি অবৈধ চালানের বিপরীতে কয়েক কোটি টাকার রাজস্ব ফাঁকির অপচেষ্টার ঘটনা ধরা পড়ে।

এ ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি মামলা হয়েছে এইচএস কোড পরিবর্তন বা ঘোষণা বহির্ভূত পণ্য আমদানির ঘটনায়। মামলা হলেও তদন্ত চলছে ধীরগতিতে। অনেক তদন্ত প্রতিবেদন থেকে যাচ্ছে অন্ধকারেই। ফলে শাস্তিও হচ্ছে কম।

 

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here