ফুটপাত সড়কে কোন অবৈধ স্থাপনা থাকবেনা: মেয়র আতিকুল ইসলাম

0
197

মোঃ দেলোয়ার হোসেন ঢাকা,ফুটপাত ও সড়ক হতে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে আজ বেলা সাড়ে এগারটা থেকে উত্তরায় ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের অভিযান শুরু হয়েছে। উচ্ছেদ অভিযানে নেতৃত্বে ছিলেন চার জন নির্বাহী ম্যজিস্ট্রেট মোঃ আমিনুল ইসলাম, সাজিদ আনোয়ার, আব্দুল হামিদ মিয়া, জুলকার নায়ন।

উত্তরার সোনারগাঁও জনপথ থেকে শুরু করে, গরীবে নেওয়াজ এভিনিউ, রবীন্দ্র সরণি, এবং মাসকট প্লাজার পিছনে ৩৫ নম্বর সড়কের ফুটপাত ও সড়ক থেকে সকল অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়। প্রায় তিন শতাধিক অস্থায়ী দোকান, শেড, সিঁড়ি ইত্যাদি উচ্ছেদ করে জনগণের চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হয়। অভিযানকালে সরকারি কাজে বাধা দেয়ায় ১জনকে ৩ মাসের কারাদণ্ড, অবৈধভাবে ফুটপাত দখল করে ব্যবসা করায় ১ জনকে ৭ দিনের কারাদণ্ড এবং ২টি প্রতিষ্ঠানকে ৩ লক্ষ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে ‘হাংরি ডাক’কে ২লক্ষ টাকা এবং ‘খাজানা’কে ১ লক্ষ টাকা জরিমানা করা হয়।

উচ্ছেদ অভিযানকালে ডিএনসিসি মেয়র মোঃ আতিকুল ইসলাম বলেন, “অনেকে ফুটপাত দখল করে অবৈধ বাণিজ্য করছে, বিভিন্ন ধরনের রাজনৈতিক অফিস নির্মাণ করেছে।  যদিও সিটি কর্পোরেশন সুন্দর সুন্দর রাস্তা তৈরী করে, পথচারীদের জন্য ফুটপাত তৈরী করে, কিন্তু ফুটপাত দখল করে বাণিজ্য করায় জনগণ ফুটপাত ব্যবহার করতে পারে না। তাই তারা ফুটপাত ছেড়ে রাস্তায় নেমে আসে, ফুটপাতে কোনো রকম বাণিজ্য চলবে না, কোনো রকম রাজনৈতিক কার্যালয় থাকতে পারবে না। আমি সকলকে বিনীতভাবে অনুরোধ করছি আপনারা আমাদের ফুটপাতগুলো মুক্ত করে দিবেন। মানুষ ফুটপাত দিয়ে হাটলে রাস্তায় গাড়ি নির্বিঘ্নে চলতে পারবে, কোনো যানজট থাকবে না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন দূর্নীতির বিরূদ্ধে জিরো টলারেন্স, মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স। আমাদের সবাইকে এই শহরটাকে ভালোবাসতে হবে, এই দেশটাকে ভালোবাসতে হবে। ফুটপাতে হকাররা আছে, অনেক বড় বড় মার্কেটের সিড়ি রয়েছে ফুটপাতের উপর। জনগণকে কষ্ট দিয়ে নিজেদের স্বার্থে কোনো কিছু করতে দেয়া হবে না। জনগণ সবার আগে। আজকে উত্তরা থেকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান শুরু হয়েছে। পর্যায়ক্রমে ঢাকা উত্তরের সব জায়গায় ডিএনসিসি অভিযান পরিচালনা করবে। আমরা ফুটপাতে কোনো রকম অবৈধ দখল দেখতে চাইনা। এখন সময় হয়েছে ফুটপাতগুলো জনগণকে বুঝিয়ে দেওয়ার”। আজকের উচ্ছেদের উপর আগামীকাল পর্যালোচনা অনুষ্ঠিত হবে। পরশুদিন আবারও উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

অভিযানকালে অন্যান্যের মধ্যে ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আবদুল হাই, ওয়ার্ড কাউন্সিলর আফসার উদ্দিন খান প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here