ফুলবাড়ী সীমান্তে পাঁচার হওয়া মা ও শিশুকে ছেড়ে দিলেন বিএসএফ

0
176


নুরনবী মিয়া, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি:
কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী সীমান্তে অবৈধ ভাবে ভারতে পাঁচার হওয়া মা ও শিশুকে আটকের ১২ঘন্টা পর গোপনে ছেড়ে দিয়েছেন ভারতীয় বিএসএফ।
মা ও শিশুটি আটকের বিষয়ে দুপুরে ধারিয়ারপাঠ সীমান্তে আন্তর্জাতিক মেইন পিলার ৯৩৮ এর সাব পিলার ৩ এসের পাশে বিজিবি ও বিএসএফের মধ্যে পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। পতাকা বৈঠত শুরু হয় দুপুর ১২ টা ৩৫ মিনিট এবং শেষে হয় ১২ টা ৫০মিনিটে। এ সময় বাংলাদেশের পক্ষে নেতৃত্ব দেয় কাশিপুর ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার আব্দুল কাদের ও ভারতের পক্ষে নেতৃত্ব দেয় কোচবিহার জেলার দিনহাটা থানার অধীনে কুর্শাহাট ক্যাম্পের ইন্সপেক্টর প্রেমানন্দ কুমার। বৈঠকে কোম্পানী কমান্ডার আব্দুল কাদের ভারতীয় বিএসএফকে তীব্র প্রতিবাদ জানালে কুর্শাহাট ক্যাম্পের ইন্সপেক্টর প্রেমানন্দ কুমার আটক মা ও শিশুকে আটকের বিষয় ও হস্তান্তরের অ¯ী^কার করেন। বৈঠকে বিজিবি’র তীব্র প্রতিবাদের মুখে আটকদের হস্তান্তরের চেষ্টা করবে বলে আশ^াস প্রদান করেছেন।
শুক্রবার ভোর ৫ টায় উপজেলার বিদ্যাবাগিশ ধারিয়ার পাঠ সীমান্তের আন্তর্জাতিক পিলার ৯৩৮/১১ এস পিলারের নিকট দিয়ে তাদের পাঁচার করে দেয় দুই দেশের দালালরা। বিকালে সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে,শুক্রবার ভোরে ঠোস বিদ্যাবাগিশ সীমান্ত এলাকার মোজাহার আলীর ছেলে মজিদুল ইসলাম (৩২) ও কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার হোলখানা ইউনিয়নের উত্তর কাগজীপাড়া গ্রামের কাচু মামুদের ছেলে রিয়াজুল ইসলাম (২৭) তার স্ত্রী খুশি বেগম (২৫) কে ভারতে লোভনীয় কাজ দেওয়ার কথা বলে তাদের শিশু সন্তান রিপন (৬)সহ শুক্রবার ভোরে কাঁটাতারের রেড়ায় পাট্টা (মই) লাগিয়ে ভারতে পাঁচার করে দেয়। এ সময় ভারতীয় ৩৮ বিএসএফ কুর্শাহাট ক্যাম্পের বিএসএফ সদস্যরা খুশি বেগম ও তার শিশু সন্তান রিপন হাতে নাতে আটক করলে রিয়াজুল পালিয়ে যায়। রিয়াজুল ইসলামের ভাগ্যে কি জুটেছে তা এখন পর্যন্ত জানা যায়নি।
এ দিকে বিকাল ৪ টায় কুশাহাট ক্যাম্পের বিএসএফ সদস্যরা গোপনে আন্তজাতিক সীমান্তের ৯৩৯/৩ এস পিলারের পাশে ১৭ নং কাঁতারের গেট দিয়ে আটক খুশি বেগম ও তার শিশু সন্তান রিপনকে ছেড়ে দিয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা ফেরত আসা খুশি বেগম ও তার ছেলে রিপন গংগারহাট ক্যাম্পে আছেন বলে বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান কাশিপুর কোম্পানী কমান্ডার আব্দুল কাদের। তিনি আর জানান, মা ও শিশুকে বৃহস্পতিবার সীমান্ত এলাকার মোজাহার আলীর ছেলে মজিদুল ইসলাম শুক্রবার ভোরে ভারতে পাঁচার করে দিলে বিএসএফ তাদের আটক করে।
স্থানীয় ইউপি সদস্য নুর মোহাম্মদ জানান,বিএসএফের নিকট আটক মা শিশুটিকে বিকালে কাঁটাতারের ১৭ নং গেট দিয়ে বিএসএফ ছেড়ে দিয়েছেন। এখন তারা গংগাহট বিজিবি’র হেফাজতে রয়েছে। লালমনিরহাট ১৫ ব্যাটালিয়নের অধীন গংগারহাট ক্যাম্পের নায়েক সুবেদার হাফিজুর রহমান জানান, মা ও শিশুটি আমাদের হেফাজতে রয়েছে। উদ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি। পরবর্তিতে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here