শুক্রবার , ১৫ ডিসেম্বর ২০১৭
ব্রেকিং নিউজ

বন্ধুর ভাতিজির সঙ্গে প্রেম করায় খুন হন এমপিপুত্র

বন্ধুর ভাতিজির সঙ্গে প্রেম করায় খুন হন এমপিপুত্রসময় সংবাদ বিডি,গাজীপুর:-এলাকার সন্ত্রাসী রিমনের সঙ্গেই আড্ডা মারতেন প্রয়াত সংসদ সদস্য মোখলেছুর রহমান জিতু মিয়ার ছোট ছেলে হাবিবুর রহমান ফয়সাল মিয়া (৩২)।

সেই আড্ডায় আসতেন কালীগঞ্জ পৌর এলাকার ভাদগাতী গ্রামের আহসান উদ্দিনের ছেলে মো. হুমায়ুন (২৮), নওশাদ (২৫), মুঞ্জুর হোসেন (৩৫) ও আব্দুস সাত্তার শেখ (২৫)।

এক পর্যায়ে আড্ডার বন্ধু হুমায়ুনের ভাতিজির সঙ্গে প্রেমে জড়িয়ে পড়েন সাবেক এমপিপুত্র ফয়সাল। আর তাতেই খুন হতে হলো তাকে।

খুনের প্রধান আসামি তৌহিদুল ইসলাম রিমনকে (২৭) শনিবার অস্ত্রসহ গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-১ এর সদস্যরা।

গ্রেফতার রিমন র‍্যাবকে জানিয়েছে, হুমায়ুনের ভাতিজির সঙ্গে ‘প্রেমের অপরাধেই’ ফয়সালকে হত্যা করা হয়েছে।

রোববার দুপুরে র‍্যাব-১ এর স্পেশালাইজড কোম্পানি গাজীপুরের পোড়াবাড়ী কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানায়।

রিমন কালীগঞ্জ পৌর এলাকার ভাদগাতী গ্রামের সাইদুল ইসলাম ওরফে মোসলেম উদ্দিন মাস্টারের ছেলে।

সংবাদ সম্মেলনে র‍্যাব-১ এর মেজর মঞ্জুর মেহেদী ইসলাম জানান, শনিবার দুপুরে গাজীপুরের কালীগঞ্জ পৌর এলাকার উত্তরগাঁও গ্রামের আলমগীরের চায়ের দোকানে অভিযান চালিয়ে মো. তৌহিদুল ইসলাম রিমনকে অস্ত্রসহ আটক করা হয়। এসময় তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ওই দোকান থেকে একটি পিস্তল, একটি ম্যাগজিন, দুই রাউন্ড তাজা গুলি, দুইটি দেশীয় রামদা এবং দুইটি মোবাইল ফোন সেট উদ্ধার করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ফয়সাল হত্যার সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার কথা স্বীকার করে রিমন র‍্যাবকে জানায়, মামলার ৩ নং আসামি মো. হুমায়ুনের ভাতিজির সঙ্গে সাবেক সাংসদের ছেলে ফয়সালের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠায় তাকে খুন করা হয়েছে।

গত ৩০ জুলাই রাতে কালীগঞ্জ পৌর এলাকার ভাদগাতী গ্রামে বাড়ির পাশে একটি মুদি দোকানে প্রয়াত সাবেক সংসদ সদস্য মোখলেছুর রহমান জিতু মিয়ার ছোট ছেলে হাবিবুর রহমান ফয়সালকে বুকে গুলি করে খুন করে সন্ত্রাসীরা।

এ ঘটনায় নিহতের বড় বোন মাসুমা সুলতানা মুক্তা বাদী হয়ে কালীগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

মামলায় রিমনকে প্রধান করে ছয়জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত আরো ৩-৪ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়।

মামলায় রিমনের বাবাকেও আসামি করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে র‍্যাব-১ এর কোম্পানি কমান্ডার মেজর মঞ্জুর মেহেদী ইসলাম, র‍্যাব-১ এর স্পেশালাইজড কোম্পানি গাজীপুরের কোম্পানি কমান্ডার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মহিউল ইসলাম, সহকারী পুলিশ সুপার মো. আসাদুজ্জামান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

 

Print Friendly