মাসে ৪ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা চাঁদা আদায়, টিআই (ট্রাফিক ইন্সপেষ্টার)

0
128

10--02--15------------ (65)

রুবেল ইসলাম, সময় সংবাদ বিডি-

মুন্সীগঞ্জঃ মাওয়া শিমুলীয়া লঞ্চ ঘাটে চাঁদা আদায়ের  অভিযোগ উঠেছে বিআইডাব্লিউটিএর  টিআই (ট্রাফিক ইন্সপেষ্টার ) মো.রিয়াদ এর বিরুদ্ধে।

ঢাকা মাওয়া মহা সড়কের অন্যতম  এবং দক্ষিন বঙ্গের এক মাত্র প্রবেশ দ্বার নদী বন্ধর এলাকা মাওয়া শিমুলীয়া ঘাট।  আর এই শিমুলীয়া ঘাটে প্রতি মাসে এই নদী পথের লঞ্চ থেকে অবৈধ ভাবে চাঁদা আদায় হচ্ছে ৪ লক্ষ্য ৮০ হাজার টাকা।

একাধিক লঞ্চ মালিকদের  অভিযোগ শিমুলীয়া -কাওরাকান্দি ও মাঝি কান্দি এ তিন পাড়ে অবৈধ ভাবে  চাঁদা আদায় করা হচ্ছে । প্রতিটি লঞ্চ থেকে ২০০ থেকে ৫০০টাকা করে নেওয়া হয়।

মাওয়া ঘাটের লঞ্চ মালিকরা জানায় অভিনব  কায়দায়  টিআই  (ট্রাফিক ইন্সপেষ্টার) রিয়াদ হোসেন  মাওয়া- কাওড়াকান্দি, মাঝি কান্দি নৌ রুটে  চলাচল রত ৮০ টি লঞ্চ থেকে চাঁদা আদায় করে থাকেন ।

তাদের মধ্যে কেউ টাকা দিতে না চাইলে তাদের লঞ্চের কাগজপত্রে ক্রটি আছে বলে ভয়ভীতি দেখিয়ে আরও বেশি টাকা আদায় করে ।

আবার কিছু লঞ্চ মালিকের সাথে তার ভাল সম্পর্ক রয়েছে । তাদের লঞ্চের কাগজপত্রের ক্রটি থাকা সর্তেও রিয়াদ হোসেনর সাথে ভালো সম্পর্ক থাকার কারনে তাদের চাঁদা দিতে হয় না।

নিরীহ লঞ্চ মালিকরা  জানান , প্রতিটি টিপ থেকে রিয়াদ হোসেনকে টাকা দিতে হবে বলে সকল লঞ্চ মালিককে বলে দিয়েছেন। যারা টাকা দিতে রাজি না তাদের লঞ্চের কাগজপত্রে ক্রটি আছে বলে মালিকদের দায় নিতে হবে।

এ কারনে সহজে কোন লঞ্চ মালিক মুখ খুলতে চায়না। এ বিষয়ে টিআই রিয়াদ হোসেন সাথে কথা বললে তিনি জানান,  সব মিথ্যা  কথা। কাগজপত্র সিরিয়াল  একটু কড়াকড়ি করি তাই তারা আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here