যুক্তরাষ্ট্রের ৭৫৫ কূটনীতিককে রাশিয়া ছাড়ার নির্দেশ পুতিনের

0
25

ভ্লাদিমির পুতিনআন্তর্জাতিক ডেস্ক ,সময় সংবাদ বিডি:যুক্তরাষ্ট্রের ৭৫৫ কূটনীতিককে রাশিয়া ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

রাশিয়ার ওপর যুক্তরাষ্ট্রের আরোপিত নিষেধাজ্ঞার জবাবে এ পদক্ষেপ নিয়েছেন রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিন।

আধুনিক কূটনীতির ইতিহাসে কোনো দেশ থেকে একসঙ্গে এতসংখ্যক কূটনীতিককে বহিষ্কারের ঘটনা নেই, যা করে দেখালেন পুতিন।

যুক্তরাষ্ট্রের কূটনীতিকদের বহিষ্কারে শুক্রবার সিদ্ধান্ত নেয় রাশিয়া। কিন্তু কতসংখ্যক কূটনীতিককে বহিষ্কার করা হচ্ছে, তা তখন জানানো হয়নি। পরে প্রেসিডেন্ট পুতিন জানান, ৭৫৫ মার্কিন কূটনীতিককে বহিষ্কার করা হলো। আগামী ১ সেপ্টম্বরের মধ্যে তাদের রাশিয়া ছেড়ে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

রাশিয়ায় মার্কিন কূটনীতিকের সংখ্যা ৪৫৫ জনে নামিয়ে আনা হচ্ছে। এর আগে রাশিয়ার কূটনীতিকরা যুক্তরাষ্ট্র থেকে বহিষ্কৃত হওয়ার পর এখন যুক্তরাষ্ট্রেও ৪৫৫ রুশ কূটনীতিক কর্মরত রয়েছেন। অর্থাৎ যুক্তরাষ্ট্র রাশিয়ার যে কয়জন কূটনীতিক রাখার অনুমতি দিয়েছে, রাশিয়াও যুক্তরাষ্ট্রের সেই কয়জনই রাখছে।

রাশিয়া থেকে বহিষ্কৃত কূটনীতিকদের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস ও কনস্যুলেটে কর্মরত রুশ কর্মকর্তারাও রয়েছেন। তবে তাদের রাশিয়া ছাড়াতে হবে কিনা, সে বিষয়ে কিছু বলা হয়নি।

বহিষ্কৃত কূটনীতিকরা রাশিয়ার রাজধানী মস্কোয় যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস, ভ্লাদিভস্টকের একাটেরিনবার্গ কনস্যুলেট ও সেন্ট পিটার্সবার্গ কনস্যুলেটে কর্মরত আছেন।

রাশিয়া থেকে মার্কিন কূটনীতিক বহিষ্কৃত হওয়ার এই ঘটনাকে ‘অপ্রত্যাশিত ও দুঃখজনক ঘটনা’ হিসেবে উল্লেখ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, ‘এই ধরনের সীমাবদ্ধতার কী ধরনের প্রভাব রয়েছে এবং এর জবাব কী হতে পারে, তা আমরা পর্যালোচনা করে দেখছি।’

পুতিন বলেছেন, তিনি বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক চান। এ ধরনের পদক্ষেপ নিতে চাননি তিনি। কিন্তু শিগগিরই দুই দেশের সম্পর্কোন্নয়ের কোনো সম্ভাবনা দেখছেন না তিনি।

শুধু কূটনীতিক বহিষ্কারেই থেমে থাকছে না রাশিয়া। তাদের দেশে যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তাদের অবকাশ যাপন কেন্দ্র ও গোলাবাড়িগুলো জব্দ করছে রাশিয়া। যুক্তরাষ্ট্রে রাশিয়ার গোয়েন্দাদের ব্যবহৃত দুটি ভবন জব্দ করার প্রতিবাদে এই পদক্ষেপ নিচ্ছে পুতিন প্রশাসন।

তথ্যসূত্র : বিবিসি অনলাইন

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here