রমজানে গরুর মাংস ৪৭৫, খাসি ৭২৫ টাকা

0
250

Image result for রমজানে গরুর মাংস ৪৭৫, খাসি ৭২৫ টাকা

স্টাফ রিপোর্টার, সময় সংবাদ বিডি-ঢাকা:রমজানে মাংসের দাম নির্ধারণ করেছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন। গরুর মাংস ৪৭৫ টাকা, বিদেশি গরুর মাংস ৪৪০ টাকা, মহিষের মাংস ৪৪০ টাকা, খাসি ৭২৫ টাকা, ছাগল ও ভেড়ার মাংস ৬২০ টাকা কেজি বিক্রি করার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

নির্ধারিত এই দাম অবশ্য ২৬ রমজান পর্যন্ত থাকবে। মঙ্গলবার নগর ভবনে ঢাকা দক্ষিন সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)’র মেয়র সাঈদ খোকনের সঙ্গে মাংস বেবসায়ীদের এক বৈঠকে এ দাম চূড়ান্ত করা হয়।

এই দাম শুধু বাজার নয়, নগরীর সব ডিপার্টমেন্টাল শপেও প্রযোজ্য হবে। আসন্ন রমজান মাস উপলক্ষে মাংস ব্যবসায়ীদের সাথে এক মতবিনিময় সভার আয়োজন করে দক্ষিণ সিটি।

সভায় মেয়র সাঈদ খোকন ব্যবসায়ীদের সমস্যার কথা শুনে বলেন, আমি আপনাদের সমস্যা নিয়ে উত্তরের মেয়রের সঙ্গে কথা বলবো। বেড়িবাঁধ এলাকায় একটি স্থায়ী পশু হাট নির্মাণে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাসও দেন মেয়র।

সভায় মাংসের দাম নির্ধারণের ক্ষেত্রে ব্যবসায়ীদের পাশাপাশি সাংবাদিকদেরও মতামত জানতে চান মেয়র। তবে ব্যবসায়ীদের মতামতকেই প্রাধান্য দেওয়া হয়।

এসময় মাংস ব্যবসায়ী সমিতির মহাসচিব রবিউল আলম বলেন, আমরা আগে প্রথম রমজান থেকে ধর্মঘটের কথা বলেছিলাম। কিন্তু রমজানের পবিত্রতা রক্ষায় ধর্মঘট প্রত্যাহার করছি।

তবে পূর্বের দাবিগুলো আবারো মেয়রের কাছে তুলে ধরে রবিউল জানালেন, আইন যথাযথ বাস্তবায়ন ও ইজারাদারের অত্যাচার বন্ধ করতে পারলে রমজানে মাংসের বাজার নিয়ন্ত্রণ কঠিন কিছু নয়।

সভার শুরুতে সমিতির পক্ষ থেকে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, যেহেতু ১৫ মাস আন্দোলন করেও লুটেরাদের প্রতিরোধ করা আমাদের পক্ষে সম্ভব হয়নি। তবে সরকার চাইলে পশু পালন, ট্যানারি শীল্প স্থানান্তর, হাটের চাঁদাবাজি বন্ধ ও প্রয়োজনে ভুটান, নেপাল ও মিয়ানমার থেকে বৈধ পথে পশু আমদানি করলে প্রতি কেজি ৩০০ টাকাতেই মাংস খাওয়া সম্ভব আমাদের দেশে।

সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন, ডিএসসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা খান মোহাম্মদ বিলাল, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শেখ সালাহউদ্দিন ও স্বাস্থ্য সমিতির সভাপতি গোলাম মর্তুজা প্রমুখ।

ব্যবসায়ীরা এ সময় মেয়রকে তিনটি প্রস্তাব দেন। পরে মেয়র সাঈদ খোকন বলেন, আপনাদের প্রস্তাব অনুযায়ী মাতুয়াইল, যাত্রাবাড়ী অথবা কামরাঙ্গীরচরে গরুর হাট করা হবে। এ ঘোষণার পরপরই মাংস ব্যবসায়ীরা করতালির মাধ্যমে মেয়রকে স্বাগত জানান।

মেয়র আরো বলেন, আমরা সব ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বসছি যেন কোনো ব্যবসায়ী বাজারে কৃত্রিম সংকট তৈরি করে জনগণকে ভোগান্তিতে না ফেলতে পারেন। এমনটি যদি কেউ করেন তাহলে সেখানে ডিএসসিসি হস্তক্ষেপ করবে।

 

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here