সমকামিতার একাল সেকাল

0
517
~~~~~~~~~~~~~সমকামিতা কি ?~~~~~~~~~~~~~~~~~

সময় সংবাদ বিডি-

ঢাকাঃ সমকামিতা কি?

বাংলা সমকামিতা শব্দটির গঠন সংস্কৃত-সঞ্জাত। সংস্কৃত শব্দ ‘সম’-এর অন্যতম অর্থ সমান অথবা অনুরূপএবং ‘কাম’ শব্দের অন্যতম অর্থ যৌন চাহিদা, রতিক্রিয়া তথা যৌন তৃপ্তি। অতঃপর এই দুই শব্দের সংযোগে উৎপন্ন সমকামিতা শব্দ দ্বারা অনুরূপ বা সমান বা একই লিঙ্গের মানুষের প্রতি যৌন আকর্ষণকে বোঝায়। সমকামিতার ইংরেজি প্রতিশব্দ হোমোসেক্সুয়ালিটি তৈরি হয়েছে গ্রিক ‘হোমো’ এবং ল্যাটিন ‘সেক্সাস’ শব্দের সমন্বয়ে। গ্রিক ভাষায় ‘হোমো’ বলতে বোঝায় সমধর্মী বা একই ধরণের। আর ‘সেক্সাস’ শব্দটির অর্থ হচ্ছে যৌনতা। মহিলা সমকামীদের বোঝাতে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত শব্দটি হল লেসবিয়ান (Lesbian) এবং পুরুষ সমকামীদের ক্ষেত্রে গে (Gay)। উভয়েই স্ব-স্ব যৌনক্রিয়া সম্পন্ন করতে শৃঙ্গার (Foreplay) এবং বিভিন্ন Intimacy Toy’র দারস্থ হয়। তবে গে (Gay) সমাজে প্রচলিত পায়ুপথের সঙ্গম সবচেয়ে ভয়ানক।
:
————————————————

❏ সমকামিতার কারন?

বিজ্ঞানীরা সমকামিতার প্রকৃত কারণ জানেন না, কিন্তু তারা বিশ্বাস করেন যে, জিনগত, হরমোনগত এবং পরিবেশগত কারণসমূহের এক জটিল আন্তঃক্রিয়ার ফলে এটি ঘটে থাকে। তবে আমার নিজস্ব পর্যবেক্ষনে ৪ টি কারন পেয়েছি এরুপ গর্হিত স্বভাবের পিছনে। তা হল Adventure, Fantasy, Exceptionalism & Curiosity.
:
————————————————

❏ পায়ুপথে সঙ্গম বা Anal Sex এর ক্ষতিকর দিক?

এনাল সেক্স অনেক ঝুঁকিপূর্ণ৷ এধরনের সঙ্গম বিভিন্ন রোগের কারণ হতে পারে৷ ডাক্তারদের প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, পায়ুপথে সঙ্গমে এইচআইভি সংক্রমণের শঙ্কা সবচেয়ে বেশি৷ স্বাভাবিক সঙ্গমের তুলনায় এই শঙ্কা ত্রিশ শতাংশ বেশি৷ পায়ুপথে সঙ্গম হিউম্যান পাপিলোমাভাইরাস (এইচপিভি), যা যৌনাঙ্গে ক্যানসারের কারণ হতে পারে, ছড়ানোর অন্যতম কারণ৷ হিপাটাইটিস, পারপিসের শঙ্কাও রয়েছে৷ পায়ুপথের মাসেল এবং টিস্যুগুলো সঙ্গমের জন্য প্রস্তুত নয়৷ তাই পিচ্ছিল করার জেল ব্যবহারের পরও অনেক সময় সেখানকার মাসেল বা টিস্যু ছিঁড়ে যায়৷ জোর করে এধরনের সঙ্গমের পর মলত্যাগ কঠিন হয়ে পড়তে পারে৷ তাছাড়া পায়ুপথ বা মলদ্বার ব্যাকটেরিয়ায় পূর্ণ থাকে৷ তাই এধরনের সঙ্গমের ফলে একজনের দেহ থেকে আরেকজনের দেহে ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণের সম্ভাবনা থাকে প্রচুর৷ এনাল সেক্সের পর কোন ধরনের রক্তপাত বা শারীরিক জটিলতা দেখা দিতে পারে। স্বাভাবিকভাবেই পায়ুপথ Lubricant উৎপাদন করতে পারেনা যোনীপথের ন্যায়; ফলে সহজেই তা Rectum এর উপর প্রচন্ড চাপ সৃষ্টি করে। আমার বিশ্ববিদ্যালয়ের Anatomy সংক্রান্ত ক্লাসে খৃষ্টান প্রফেসর পর্যন্ত সবাইকে সাবধান করে দেন পায়ুপথের (Rectum) যৌনক্রিয়ার ক্ষতিকর দিক সম্পর্কে।
:
————————————————

❏ সমকামিতার বিষয়ে ইসলামের অবস্থান?

অবশ্যই ইসলামে homosexuality সম্পূর্ণ হারাম এবং স্বাভাবিক ব্যভিচারের চেয়েও খারাপ। লুত (আ) এর কওমকে (Sodom আর Gomorrah নগরী) আল্লাহ ধ্বংস করে দিয়েছিলেন যেসব কারণে এর মধ্যে সমকামিতা ছিল একটি। পবিত্র কুরআন এবং হাদিসের নানা জায়গায় সমকামিতাকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। আল কুরআনের সাত জায়গায় লুত (আঃ) এর কওমের কথা বলা হয়েছে যাদেরকে সমকামিতার অপরাধে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন ধ্বংস করে দেন। লুত (আঃ) এর কওম যে শহরে বাস করত তা থেকে ইংরেজী সোডোমি শব্দটি এসেছে যেটা পায়ুকাম বুঝাতে ব্যবহৃত হয়।

আল কুরআনের যে সাত জায়গায় এসেছে-

১। সুরা আল আরাফের ৮০-৮৪ আয়াত
২। সুরা হুদ এর ৭১-৮৩ আয়াত
৩। সুরা আল আম্বিয়া এর ৭৪ আয়াত
৪। সুরা আল হাজ্জ্ব এর ৪৩ আয়াত
৫। সুরা আশ-শুয়ারা এর ১৬৫-১৭৫ আয়াত
৬। সুরা আন-নামল এর ৫৬-৫৯ আয়াত
৭। সুরা আনকাবুত এর ২৭-৩৩ আয়াত

রাসুল (স) বলেছেন, “তোমরা যদি কাউকে পাও যে লুতের সম্প্রদায় যা করত তা করছে, তবে হত্যা কর যে করছে তাঁকে আর যাকে করা হচ্ছে তাকেও।” (আবু দাউদ ৩৮:৪৪৪৭)
:
————————————————

❏ সমকামিতা থেকে মুক্তির উপায়?

➽ এক.
হৃদয় থেকে সত্যিকার অর্থে তওবা করতে হবে। আল্লাহর দিকে ফিরে যেতে হবে। অতীতে যা করেছন তার জন্য লজ্জিত হতে হবে। বেশি-বেশি দুয়া করতে হবে এবং কায়মনোবাক্যে আকুতি করতে হবে আল্লাহ যেন তোমাকে ক্ষমা করে দেন। তিনি যেন এই বিষয় থেকে নিষ্কৃতি পেতে সহায়তা করেন। নিশ্চয় আল্লাহ আরাধ্যদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি মেহেরবান এবং দুয়া কবুলে অধিক নিকটবর্তী। আল্লাহ তাআলা বলেন, “বলুন, হে আমার বান্দাগণ, যারা নিজদের উপর বাড়াবাড়ি করেছে, তোমরা আল্লাহর রহমত থেকে নিরাশ হয়ো না। নিশ্চয় আল্লাহ সকল গুনাহ মাফ করে দেন। নিশ্চয় তিনি অত্যন্ত ক্ষমাশীল, অতি দয়ালু।”[সূরা আল-যুমার, আয়াত: ৫৩]

➽ দুই.
রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন: “হে যুবসম্প্রদায়! তোমাদের মধ্যে যে বিয়ে করার ক্ষমতাসম্পন্ন সে যেন বিয়ে করে ফেলে। কেননা দৃষ্টিকে অধিক অবদমনকারী, যৌনাঙ্গকে অধিক হেফাজতকারী। আর যে তা পারবে না, সে যেন রোজা রাখে, এটা তার জন্য যৌন-উত্তেজনা দমনকারী।” [সহিহ বুখারি (৫০৬৫) ও সহিহ মুসলিম (১৪০০)]

➽ তিন.
হারাম জিনিসে দৃষ্টি দেয়া থেকে নিজেকে সংবরণ করার ক্ষেত্রে কখনো অলসতা না করা। যেমন- অশ্লীল ম্যাগাজিন, বিবস্ত্র ছবি ইত্যাদি, যা পাপ ও অশ্লীল কর্মে জড়িয়ে যেতে মানুষকে উৎসাহিত করে, মনের মধ্যে খারাপ প্রভাব জিইয়ে রাখে। এসব থেকে আমরা সবাই আল্লাহর আশ্রয় চাই। আল্লাহ তাআলা বলে: “মুমিন পুরুষদের বলে দিন, তারা তাদের দৃষ্টিকে সংযত রাখবে এবং তাদের লজ্জাস্থানের হিফাযত করবে। এটাই তাদের জন্য অধিক পবিত্র। নিশ্চয় তারা যা করে সে সম্পর্কে আল্লাহ সম্যক অবহিত।” [সূরা আন-নূর, আয়াত: ৩০]

➽ চার.
কখনো একাকী নিভৃতে না থাকা। কেননা একাকীত্ব যৌনবিষয়ে চিন্তা করা কারণ হতে পারে। আর সময়কে উপকারী বিষয়ে ব্যয় করতে সচেষ্ট হতে হবে। যেমন- সৎকাজ, কুরআন তিলাওয়াত, যিকির, নামাজ ইত্যাদি।

➽ পাঁচ.
ফাসেক ও অসৎপ্রবণ ব্যক্তিদের সঙ্গ ত্যাগ করো; যারা এসব বিষয়ে গুরুত্ব দিয়ে থাকে। যারা যৌনউত্তেজক কথাবার্তা বলতে অভ্যস্ত, গুনাহকে যারা তুচ্ছভাবে পেশ করে এবং সেটাকে কর্মে পরিণত করতে নির্ভয়। ওদেরকে ছেড়ে সৎলোকদের সঙ্গ নেয়া, যারা আল্লাহর কথা স্মরণ করিয়ে দেবে। তাঁর আনুগত্যের ব্যাপারে সহায়তা দেবে। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন: “মানুষ তার বন্ধুর দীনের উপর থাকে, অতঃপর কার সাথে বন্ধুত্ব করছ তা বিবেচনা করে নাও।” [সুনানে তিরমিযি (২৩৭৮), আলবানি হাদিসটিকে সহিহুত তিরমিযি (১৯৩৭) গ্রন্থে ‘হাসান’ বলেছেন।
:
————————————————
❏ বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে সমকামিতার অবস্থান?
বাংলাদেশে সমকামিতার প্রতি কঠোর নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। বাংলাদেশের সংবিধানে সকল নাগরিকের ধর্মীয় ও সামাজিক অধিকার দেয়া হলেও নৈতিক অবক্ষয়ভিত্তিক বিধি-নিষেধ রয়েছে। ৩৭৭ ধারা মোতাবেক সমকামিতা ও পায়ুমৈথুন শাস্তিযোগ্য ফৌজদারি অপরাধ, যার শাস্তি দশ বছর থেকে শুরু করে আজীবন কারাদণ্ড এবং সাথে জরিমানাও হতে পারে। ধারা অনুযায়ী অপরাধ প্রমাণে যৌনসঙ্গমের প্রয়োজনীয় প্রমাণ হিসেবে লিঙ্গপ্রবেশের প্রমাণ যথেষ্ট হবে। ৩৭৭ ধারার ব্যাখ্যায় পায়ুসঙ্গমজনিত যে কোন যৌথ যৌন কার্যকলাপকে এর অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। একারণে, পরস্পর সম্মতিক্রমে বিপরীতকামী মুখকাম ও পায়ুমৈথুনও উক্ত আইন অনুযায়ী শাস্তিযোগ্য অপরাধ বলে গণ্য হতে পারে।

বর্তমানে “বয়েজ অফ বাংলাদেশ” হল দেশের বৃহত্তম সমকামী সংগঠন। এটি ২০০৯ থেকে ঢাকায় এলজিবিটি সচেতনতাবর্ধক অনুষ্ঠান করে আসছে। এই দল বাংলাদেশে একটি সুসংহত এলজিবিটি সমাজ গড়তে চায়, এবং চায় ৩৭৭ ধারার অবসান! আরো একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রচেষ্টা হল মুক্তমনা ব্লগ, যাকে পরিচালকরা “বাঙালী মানবতাবাদী ও মুক্তচিন্তার সমর্থকদের জন্য একটি ধর্মনিরপেক্ষ স্থান” বলে বর্ণনা করে। ২০১০ এ এই ব্লগের অন্যতম দোসর অভিজিৎ রায় “সমকামিতা:একটি বৈজ্ঞানিক এবং সমাজ মনস্তাত্ত্বিক অনুসন্ধান” নামে একটি বই প্রকাশ করেছিলে।

লেখক -আবু জাসরাহ

            নিউইয়র্ক সিটি, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here