টেকনাফে সাড়ে ৩ লাখ ইয়াবাসহ মিয়ানমারের ৩ নাগরিক আটক

0
23

টেকনাফে সাড়ে ৩ লাখ ইয়াবাসহ মিয়ানমারের ৩ নাগরিক আটক - জাতীয়

সময় সংবাদ বিডি,কক্সবাজার:-কক্সবাজারের টেকনাফে পৃথক অভিযান চালিয়ে ইয়াবাসহ মিয়ানমারের তিন নাগরিককে আটক করেছে বিজিবি। এসময় দুইটি নৌকাসহ জব্দ করা হয়েছে ৩ লাখ ৬২ হাজার ৪৮৬ পিস ইয়াবা।

সোমবার ভোরে টেকনাফ উপজেলার সদর ইউনিয়নের নেটং পাড়া এবং হ্নীলা ইউনিয়নের মোচনী এলাকায় নাফ নদী সংলগ্ন এলাকায় এ অভিযান চালানো হয় বলে জানান বিজিবির টেকনাফ ২ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল এসএম
আরিফুল ইসলাম।

আটকরা হলেন-মিয়ানমারের আকিয়াব জেলার মংডু থানার নাইটরডিল এলাকার মো. ইউনুছ আলীর ছেলে মো. আবু ফয়াজ (৪০) ও মো. আব্দুর রশিদের ছেলে মোহাম্মদ শফিক (২০) এবং একই থানার নোয়াপাড়া এলাকার মো. ফয়জল আহম্মদের ছেলে মো. রফিক (২৫)।

লে. কর্নেল আরিফুল জানান, মিয়ানমার থেকে ইয়াবার চালান আসার খবরে বিজিবির একটি দল সোমবার ভোরে টেকনাফ সদরের নেটংপাড়া সংলগ্ন নাফ নদীর কিনারায় ওঁৎ পেতে অবস্থান নেয়। একপর্যায়ে মিয়ানমার দিক থেকে একটি ইঞ্জিনচালিত কাঠের নৌকা আসতে দেখে বিজিবির সদস্যরা থামার জন্য সংকেত দেয়। এসময় পাচারকারীরা বিজিবির সদস্যদের দেখতে পেয়ে নৌকাটি নদীর কিনারায় রেখে কেওড়া বনের ভেতর দিয়ে পালানোর চেষ্টা করে। বিজিবির সদস্যরা
ধাওয়া দিলেও একপর্যায়ে তিনজনকে আটক করা সম্ভব হয়। পরে তাদের দেহ তল্লাশি করে পাওয়া যায় ২২ হাজার ৪৮৬ পিস ইয়াবা।

আটকদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট আইনে টেকনাফ থানায় মামলা করা হয়েছে বলে জানান আরিফুল।

এদিকে, সোমবার ভোরে টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের মোচনী এলাকার ছুরিখালে বিজিবির একটি দল আরেকটি অভিযান চালিয়ে ৩ লাখ ৪০ হাজার ইয়াবা জব্দ করেছে। তবে এসময় পাচারকারিরা পালিয়ে যাওয়ায় কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি।

লে. কর্নেল আরিফুল জানান, সোমবার ভোরে মিয়ানমার থেকে ইয়াবার বড় একটি চালান আসার খবরে বিজিবির একটি দল টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের মোচনী এলাকার ছুরিখালের পাশে ওৎ পেতে অবস্থান নেয়। একপর্যায়ে মিয়ানমার দিক থেকে একটি ইঞ্জিনচালিত কাঠের নৌকা ৪/৫ জন লোককে আসতে দেখে বিজিবির সদস্যরা থামার জন্য সংকেত দেয়। পাচারকারিরা নৌকাটি নদীর কিনারায় রেখে ইয়াবাভর্তি বস্তা নিয়ে কেওড়া বনের ভেতর দিয়ে পালিয়ে যায়। বিজিবির সদস্যরা ধাওয়া দিলে পাচারকারিরা বস্তাগুলো ফেলে পালিয়ে যায়। ফলে তাদের আটক করা সম্ভব হয়নি। পরে পাচারকারিদের ফেলে যাওয়া বস্তা থেকে পাওয়া যায় ৩ লাখ ৪০ হাজার পিস ইয়াবা।

উদ্ধার করা এসব ইয়াবা বিজিবির ব্যাটালিয়ন দপ্তরে রাখা হয়েছে বলে জানান আরিফুল।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here