অশ্লীল মানসিকতা এই ধর্ষনের কারন

0


সময় সংবাদ বিডি-ঢাকা:ধর্ষণের ঘটনা গুলো কেউই,সামগ্রিকভাবে চিন্তা করে না, কেনো এই অপরাধের মহামারি আকার ধারন করছে?? নারী বলুন আর পুরুষ বলুন,উভয়ের অশ্লীল মানসিকতা হচ্ছে ধর্ষণের প্রধান কারন।কিছু নারী ভালো করেই জানে তার কোন বান্ধবীটা কেন অশ্লীল ড্রেস পরে রাস্তায় বেড় হয়। নিজেরা নিজেরা ঠিকই এই আলোচন করে হাসাহাসি করে।

পুরুষদের ক্ষেত্রেও সেম,কোন বন্ধুটা কোথায় কি দেখে কি করে বা কি করতে চায় সবই আড্ডার ছলে বেড় হয়ে আসে।আমরা উভয় লিঙ্গ একে অপরকে দোষ দিচ্ছি অথচ নিজেরা ভালো করেই জানি আমার বন্ধু বা বান্ধবীর এই অশ্লীল মানসিকতা কেন দেখায়।মনের পর্দা করতে বলে যে একে অপরকে যৌনলীলা লূলিত করে দিচ্ছে,আকৃষ্ট করা নারীকে দেওয়ার বাসনায়,যাকে সুযোগ পাচ্ছে তাকেই অশ্লীল মানসিকতা দেখায়।
 
ধরুন ৭০ বছরে একজন বৃদ্ধ হঠাৎ করে টিভির পর্দায় দেখলো সানি লিওনিকে আর তার রসাল চিন্তা মাথায় চলে আসলো!! ভোরে হাটতে বেড় হয়ে দেখলো পার্কে শর্ট টি-শার্ট আর ট্রাউজার পরে দৌড়াচ্ছে ২০/২২ বছরের যুবতি মেয়ে তখন ওর মধ্যে কিন্তু রাতের দেখা প্রতিচ্ছবি ভেসে আসবে!! আকাঙ্ক্ষা করে লাভ নাই কারন পার্কে দেখে যাওয়া সম্ভব আর কিছুই না,নিজের বয়সেরও একটা লেহাস আছে চিন্তা করবে।
কিন্তু মাথায় যে নেশা চেপে গেছে, বাড়ির পাশে যদি প্রতি নিয়তো দেখে স্কুলের বাচ্চা শরীরে এমন পোষাক বা সাজসজ্জা,যেটা সানির সাথে অথবা পার্কের মেয়ের সাথে মিলে গেছে তখন ঐ বাচ্চার মধ্যে ঐ বৃদ্ধ তাকেই দেখবে,আর বয়সের লেহাস করে চিন্তা করবে ও কাউকে বলবে না বা ওকে দিয়ে ভোগ মিটানোর চান্স আছে।বাছ হয়ে গেলো!!
 
অপরাধ করার আগে কেউ চিন্তা করে না,অপরাধ ঘটে গেলে পরিস্থিতি হ্যান্ডেল করতে চেষ্টা করে তখন কিছু কনভেন্স হয়ে যায় আর কিছু হত্যার মতো অপরাধ ঘটে যায়।নিউজ হয়ে গেলোঃ ৭ বছরের বৃদ্ধ দ্বারা ৭ বছরের শিশু ধর্ষনের শিকার।এরকম হাজার হাজার পুরুষের মস্তিষ্ক বিকৃতি ঘটে হরহামেশা!!
 
কিছুদিন আগে আমরা নিউজ পড়েছি ১৪ বছরের কিশোর দ্বারা ১০৪ বছরের রোজাদার বৃদ্ধা অন্ধ নারী ধর্ষনের শিকার হয়েছিলো।১৪ বছরে কিশোর ঐ বৃদ্ধার কোন সৌন্দর্য টা দেখেছে আমাকে কি বলতে পারবেন?? কিশোর ঠিক ঐ ৭০ বছরের বৃদ্ধের মতই দেখতে দেখতে অন্ধ বৃদ্ধার উপরে সুযোগ নিয়েছে,ভেবেছে দেখবে না অপরাধও গোপন থাকবে।
 
ভুল বুঝবেন না,একে অপরকে দোষ না দিয়ে বিবেক দিয়ে চিন্তা করুন উভয় লিঙ্গের অশ্লীল মানসিকতা যখন অভ্যাস বা পেশা হয়ে দাঁড়ায়,তখন ভিকটিম হয় ৭ বছরের শিশু থেকে ১০৪ বছরের বৃদ্ধা।আর পুরুষের সর্বোচ্চ শাস্তি হয় মৃত্যুদণ্ড অথবা ফায়ার করে হত্যা।
এই অপরাধ নিধন করতে প্রয়োজন কঠিন আইনি ব্যবস্থা।তাহলে মোটামুটি সব শ্রেনীর মানব/মানবী কি ভাবে আসল মনের পর্দা করতে হয় শিখে যাব “ইন’শা আল্লাহ। হ্যাঁ!! কিছু ঘটনা ব্যতিক্রম আছে যেটা সাইকো থ্রিলার মুভি বা বই পুস্তক বা ব্লগ পড়ছে তারা ভালো ভাবেই বুঝতে পারবে।এখানেও নারী পুরুষ উভয় ক্যারেক্টারের সাইকো বিদ্ধমান।
 
লেখক :-আবু লাইবাহ

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here