আন্ডারওয়ার্ল্ডের শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসানের সহযোগী শাকিল রিমান্ডে

0


সময় সংবাদ বিডি -ঢাকা:আন্ডারওয়ার্ল্ডের শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসানের অন্যতম সহযোগী মাজহারুল ইসলাম ওরফে শাকিলকে,অস্ত্র আইনের মামলায়,তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। রোববার শুনানি শেষে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট শাহিনুর রহমান আসামির রিমান্ডের এই আদেশ দেন। এ দিন আসামিকে আদালতে হাজির করে সাতদিনের রিমান্ড আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মোহাম্মদপুর থানার এসআই মোর্শেদ আলম।

অপরদিকে আসামিপক্ষে রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিন আবেদন করা হয়। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত আসামির জামিন নাকচ করে রিমান্ডের ওই আদেশ দেন।

এর আগে গত শুক্রবার রাতে রাজধানীর মোহাম্মদপুর এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে রেপিড একশন ব্যাটালিয়ন (Rad) র‌্যাব,( ২১)। গ্রেফতারের সময় শাকিলের দেহ তল্লাশি করে কোমড় থেকে ২টি বিদেশি পিস্তল,২টি ম্যাগাজিন ও ৬ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়। পরে র‌্যাবের-২-এর পুলিশ পরিদর্শক মোহাম্মদ আবদুল হামিদ খান বাদী হয়ে মোহাম্মদপুর থানায় মামলাটি দায়ের করেন।

এ দিকে গত,শনিবার এক সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাবের, লিগ্যাল ও মিডিয়া উইং পরিচালক লে. কর্নেল সারওয়ার-বিন-কাশেম জানান, শাকিল দীর্ঘদিন ধরে শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসানের পক্ষে সন্ত্রাস ও চাঁদাবাজ সংক্রান্ত অপরাধ সংঘটিত করে আসছে।

সম্প্রতি ২০০৫ সালে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র রাজনীতি শুরু করে। পরে ঢাকা মহানগরের ছাত্র রাজনীতির সঙ্গে জড়িত হয়। ২০০৯ সাল থেকে যৌথভাবে টেন্ডারের কাজে জড়িত হয়ে পড়ে। রেলওয়েতে ছোট ছোট কাজের টেন্ডার নিয়ে কাজ করত।

এভাবে ২০১০-২০১২ সাল পর্যন্ত টেন্ডার নিয়ে কাজ করে। ২০১৩ সালে গ্রামের বাড়ি ফেনীতে চলে যায় এবং পারিবারিক দোকানের কাজের পাশাপাশি গ্রাম্য রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়ে। ২০১৫ সালে পুনরায় ঢাকায় আসে এবং রাজনীতি শুরু করে। কিন্তু যুবলীগ নেতা খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়ার সঙ্গে বিরোধে জড়িয়ে পড়ায় রেলওয়ের টেন্ডার কাজ নিয়ে বিরোধ তৈরি হয়।

২০১৬ সালের জুন মাসে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সহ-সম্পাদক রাজিব হত্যার এজাহারে নাম আসার ৪ দিন পর শাকিল চীনে চলে যায়। ২০১৭ সাল পর্যন্ত চীনে বসবাস করে এবং কার্গো সার্ভিসের কাজ করে। ২০১৮ সালে চীন থেকে দুবাই চলে যায়। ২০২০ সালের ১২ জানুয়ারির আগ পর্যন্ত দুবাই ছিল।

দুবাই থাকা অবস্থায় শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসানের সঙ্গে পরিচয় হয়। জিসানের পক্ষে লেবার ব্রোকারের কাজ করত। দুবাইতে জিসানের সঙ্গে লেবার আবাসিক ভবনে ছিল। সেই ভবনে থেকে তারা তাদের সন্ত্রাসী পরিকল্পনা এবং সেখান থেকেই তাদের বিভিন্ন সহযোগীর মাধ্যমে বাংলাদেশে সন্ত্রাসী কার্যক্রম পরিচালনা করত।

(২০২০)চলতি বছরের ১২ জানুয়ারিতে ঢাকায় আসে শাকিল। মূলত তার ঢাকায় আসার উদ্দেশ্য হল জিসানের নির্দেশ ও সহযোগিতায় বাংলাদেশে তার সন্ত্রাসী কার্যক্রম নতুন করে প্রতিষ্ঠিত করে আন্ডারওয়ার্ল্ডের নেতৃত্ব দেয়া।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here