এমপি লিটনের গুলিতে আহত সৌরভ বাড়ি ফিরেছে

0


1445865379

সময় সংবাদ বিডি ,গাইবান্ধা প্রতিনিধি:-

এমপি লিটনের ছোড়া পিস্তলের গুলিতে আহত গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার দহবন্দ ইউনিয়নের গোপাল চরণ গ্রামের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র শাহাদত হোসেন সৌরভ (৯) সোমবার দুপুরে বাড়ি ফিরেছে। এর আগে দু’পায়ে গুলি লাগার পর তাকে দ্রুত রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। চিকিৎসা শেষে দীর্ঘ ২৫ দিন পর তার বাড়ি ফেরার বিষয়টি এলাকাবাসীর মধ্যে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে। তাকে এক নজর দেখার জন্য তার গ্রামবাসী, স্কুলের সহপাঠি বন্ধু এবং তার পক্ষে আন্দোলনকারী নেতাকর্মীরা সেখানে ভিড় করেন। মিডিয়া কর্মীরা সকাল থেকেই সেখানে অপেক্ষা করছিলেন।
রংপুর মেডিকেল কলেজ থেকে একটি সাদা রংয়ের এ্যাম্বুলেন্সে করে সৌরভকে নিয়ে তার বাবা সাজু মিয়া ও মা সেলিনা বেগম দুপুর ১২টায় রওয়ানা হন। তাকে বিদায় দেয়ার সময় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা. বরকত উল্যা, শিশু সার্জারী বিভাগের চিকিৎসক বাবলু কুমার সাহাসহ কর্তব্যরত নার্স এবং আশেপাশের বেডে থাকা রোগীদের স্বজনরা সবাই তাকে শুভেচ্ছা জানান।
সৌরভের জন্য গঠিত মেডিকেল বোর্ডের সভাপতি অর্থোপেডিক ও সার্জারি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. শফিকুল ইসলাম জানান, চিকিৎসা নেয়ার পর সৌরভ এখন অনেকটাই সুস্থ। তবে গুলিবিদ্ধ ক্ষতস্থানের ভেতরের ঘা শুকাতে আরো কিছুটা সময় লাগবে। এজন্য তার পরিমিত বিশ্রাম ও নিয়মিত চিকিৎসা অব্যাহত রাখতে হবে।
রংপুর জেলা পুলিশের একটি দল অ্যাম্বুলেন্সের পেছনে থেকে সৌরভ ও তার বাবা-মার নিরাপত্তা নিশ্চিত করেন। রংপুরের পীরগঞ্জ ও গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলার ধাপেরহাট পেট্রোল পাম্পের কাছে সুন্দরগঞ্জ থানার পুলিশ তাদের বাড়িতে পৌঁছানোর দায়িত্ব নেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পুলিশের একটি সুত্র জানায়, নিরাপত্তার কথা বিবেচনায় রেখেই ধাপেরহাট বন্দর থেকে সাদুল্যাপুর উপজেলা সদর হয়ে নলডাঙ্গা বাজারের মধ্য দিয়ে সুন্দরগঞ্জের ধোপাডাঙ্গার ভেতর দিয়ে গাইবান্ধা-সুন্দরগঞ্জ সড়ক দিয়ে গোপালচরণ গ্রামে গিয়ে পৌঁছান তারা।
সৌরভকে বহনকারী অ্যাম্বুলেন্সটি পুলিশের কড়া প্রহরায় বেলা ২টা ২২ মিনিটে গোপালচরণ গ্রামের ব্র্যাক মোড়ে এসে দাঁড়ায়। সেখানে তার আত্মীয়-স্বজন প্রথমে তাকে সাহায্য করলেও চারদিকে পরিচিত মুখ ও স্কুলের সহপাঠিদের দেখে সৌরভ হাসি মুখে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে নিজেই হাটতে শুরু করে। তবে কিছু সময় পরই তার মুখে যন্ত্রণার চিহ্ন ফুটে ওঠে।
এদিকে এমপি লিটনের গুলিতে আহত সৌরভ তার পিতা-মাতার সাথে গোপাল চরণ গ্রামে ফিরছে এ খবর আগেই পৌঁছে গিয়েছিল। শতশত উৎসুক শিশু, মহিলা-পুরুষ তাকে এক নজর দেখার জন্য রাস্তায়, তার বাড়ির পাশে ও আঙিনায় সমবেত হয়।
তাকে বহনকারী অ্যাম্বুলেন্সটি পুলিশ প্রহরায় তার বাড়ির সামনে দাঁড়ালে স্থানীয় জনতার সাথে প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার কর্মীরা হুমড়ি খেয়ে পড়ে। পরে তার বাবা এবং আত্মীয় স্বজনরা সৌরভকে হাত ধরে গাড়ি থেকে নামিয়ে ধীরে ধীরে বাড়ির ভেতরে নিয়ে যান।
বাড়ির আঙিনায় দাঁড়িয়ে সৌরভের বাবা সাজু মিয়া জানান, হাসপাতালে আমার ছেলে সৌরভকে সোমবার সকালে ছাড়পত্র দেয়ার আগে চেকআপ করা হয়। সেখানকার ডাক্তার বাবলু কুমার সাহা জানিয়েছেন, আগামী ১৫ দিনের মধ্যে আবারো তাকে পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য নিয়ে যেতে হবে।
সৌরভের মা সেলিনা বেগম জানান, দীর্ঘ ২৫ দিন ধরে সৌরভকে নিয়ে হাসপাতালে অনেক দুঃখ-কষ্টের মধ্যেও নিরাপদে ছিলাম। গোটা রাস্তাতেও পুলিশের উপস্থিতিতে নিরাপত্তা বোধ করেছি। তবে বাড়িতে এসে এখন কেন জানি ভয় ভয় লাগছে। এমপি লিটন ও তার লোকজন যদি আমাদের কোন ক্ষতি করে সেই আতঙ্কে আছি। তিনি তার স্বামী, সন্তান ও নিজের নিরাপত্তার চেয়ে সাংবাদিকদের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর সু-দৃষ্টি কামনা করেন।
এদিকে সৌরভ এসেই তার ফেলে যাওয়া ঘর, টেবিলে সাজানো বইপত্র বার বার দেখছিল। তার প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে সে জানায়, বাড়িতে এসে সবাইকে দেখে খুব ভাল লাগছে। তবে খুব ক্লান্ত লাগছে। শরীর সেরে উঠলে আগের মতো খেলাধুলা ও স্কুলে গিয়ে পড়াশুনা করব।
অপরদিকে এমপি লিটনের ওই অপকর্মের বিরুদ্ধে গড়ে ওঠা আন্দোলনের অন্যতম নেতা সুন্দরগঞ্জ পৌর মেয়র ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আব্দুল আল মামুন বলেন, ওই অসহায় দরিদ্র শিশুটি অনেক বড় ধকল সামলে বাড়ি ফিরেছে। এখন তার দীর্ঘমেয়াদী চিকিৎসার প্রয়োজন। সুন্দরগঞ্জ পৌরসভার পক্ষ থেকে আজ মঙ্গলবার তাকে পোশাক, শিক্ষা উপকরণ ও অন্যান্য সহযোগিতা দেয়া হবে। এ ব্যাপারে অন্যদেরও এগিয়ে আসা উচিত। তিনি বলেন, এমপি লিটন একটি শিশুকে গুলি করে যে ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটিয়েছেন তার বিচার হওয়া উচিৎ। তাকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মহান সংসদের সদস্য পদ থেকে সরিয়ে দেয়ার দাবি জানাচ্ছি। তাতে দলের ভাবমুর্তি উজ্জ্বল হবে।
সৌরভের পরিবারের নিরাপত্তা প্রসঙ্গে সুন্দরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ ইসরাইল হোসেন জানান, ওই পরিবারটির নিরাপত্তার ব্যাপারে পুলিশের সার্বক্ষণিক নজরদাড়ি থাকবে। এমনকি সৌরভের বাড়িতে দু’জন গ্রাম পুলিশকে তদারকির জন্য সেখানে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তারপরও সৌরভের বিষয়টি নিয়ে আমরা সার্বক্ষণিক সজাগ থাকবো।
উল্লেখ্য, গত ২ অক্টোবর ভোরে চাচার সাথে পায়চারী করার সময় সুন্দরগঞ্জ উপজেলার ব্র্যাক মোড়ের কাছে গাইবান্ধা-১ সুন্দরগঞ্জ আসনের মদ্যপ সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটনের ছোড়া গুলিতে চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র শিশু শাহাদত হোসেন সৌরভ আহত হয়ে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিল। তার বাবা সাজু মিয়া বাদী হয়ে এমপি লিটনকে একমাত্র আসামী করে ৩ অক্টোবর থানায় মামলা করেন। এরপর এমপি লিটন আত্মগোপন করেন। পরে গত ১৪ই অক্টোবর গোয়েন্দা পুলিশ এমপি লিটনকে ঢাকার উত্তরার ৫ নম্বর ব্লকে তার বোনের বাসা থেকে গ্রেফতার করে। ১৫ অক্টোবর তাকে গাইবান্ধা জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে হাজির করা হয়। এ সময় তার পক্ষে বিচারক তার জামিন আবেদন নাকচ করে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন। গত রোববার দ্বিতীয় দফা জামিনের আবেদনও বিচারক নাকচ করে দেন। বর্তমানে তিনি জেল হাজতে অবস্থান করছেন।
– See more at: http://www.manobkantha.com/2015/10/26/75334.php#sthash.E17L38ph.dpuf

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here