কেশরহাট পৌরসভার কর্মকর্তা ও কর্মচারী কল্যান ফেডারেশনের প্রতিবাদ সভা

0


জুয়েল রানা, কেশরহাট পৌর প্রতিনিধিঃ
রাজশাহীর কেশরহাট পৌরসভার মেয়র শহিদুজ্জামান শহিদ এর নামে কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের টাকা লুটপাট মর্মে ঢাকার গাজীপুরের স্থানীয় নামসর্বস্ব একটি আন্ডারগ্রাউন্ড পত্রিকায় মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করার তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছেন পৌর কর্মকর্তা ও কর্মচারী কল্যান ফেডারেশন।

বৃহস্পতিবার (২৬ নভেম্বর) কেশরহাট পৌর ভবনের হলরুমে এই প্রতিবাদ করা হয়। এসময় সভায় বক্তব্য রাখেন, পৌর কর্মকর্তা ও কর্মচারী কল্যান ফেডারেশনের সভাপতি আবদুর রহিম। সাধারণ সম্পাদক জামাল হোসেনের পরিচালনায় প্রতিবাসভার বক্তারা বলেন কেশরহাট পৌরসভার মেয়র শহিদুজ্জামান একজন বংশীয় রাজনৈতিক। এজন্য তিনি একাধিকবার মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি সকল কর্মকর্তা-কর্মচারিদের সাথে সদাচারণের মাধ্যমে দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করে চলেছেন। রাস্তাঘাটসহ সকল উন্নয়ন পরিকল্পনার জন্য পৌরসভার নাগরিকরা তাদের নাগরিক সুবিধা পাচ্ছে। তিনি সকল দিক থেকে একজন ভাল মানুষ। তার বাবা মরহুম আবুল কাশে মিয়া ৩৬ বছর যাবত রায়ঘাটী ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তার আমলেও এ এলাকায় যথেষ্ঠ উন্নয়ন হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় আমাদের মহোদয় ২য় বারের মতো মেয়র নির্বাচিত হয়ে নাগরিক সেবাদান করে আসছেন।

সম্প্রতি একটি কূচক্রি মহল কর্মচারিসহ মেয়র মহোদয়ের বিরুদ্ধে ঢাকার একটি নাম সর্বস্ব পত্রিকায় উদ্ভট ও বানোয়াটি একটি সংবাদ পরিবেশন করে তা ফটোকপি করে জনসাধারণের মাঝে গোপনে সরবরাহ করাচ্ছে। বক্তারা আরো বলেন আমাদের মেয়র মহোদয় জনবিচ্ছিন্ন নয়। তার রয়েছে অনেক জনশ্রƒতি। আসন্ন পৌর নির্বাচনের আগে ওই কুচক্রি মহল নিজের স্বার্থ হাসিলের উদ্দেশে কতিপয় সাংবাদিকের মাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ করিয়ে অপ্রচার চালাচ্ছে যা জনসম্মূখ্যে প্রমাণিত হয়েছে। তাদের আমরা ঘৃনা, তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। র্কমকর্তা-কর্মচারি পরিষদের সকল সদস্য ও জনগণের সহযোগিতার পাশাপাশি দলীয় মনোনয়ন পেয়ে শহিদুজ্জামান তৃতিয়বারের মতো মেয়র নির্বাচিত হবেন বলেও তারা উল্লেখ করেন।

এসময় কর্মকর্তা-কর্মচারি ফেডারেশনের রাজশাহী জেলা কমিটির সভাপতি ও কেশরহাট পৌরসভার লাইসেন্স পরিদর্শক রোকমতজামান টিটু, পৌর কমিটির সাবেক সম্পাদক মখলেসুর রহমান ও কার্যসহকারি মজিবর রহমানসহ সকল কর্মকর্তা-কর্মচারিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here