দুঃখ নিকুঞ্জ

0


—-মরিয়ম আক্তার তুলি

নিভৃত নিকুঞ্জ কাননে নীল দিগন্ত রেখা বরাবর দাঁড়িয়ে একাকী;

দূর থেকে ভেসে আসে অতি চেনা সুর।

প্রফুল্ল চঞ্চলা মনে, যত সব খামখেয়ালি ভরা প্রগাঢ় কৃতজ্ঞতায়!

বেভুলে থমকে দাঁড়ানো  মোহনীয় রমণী তার দুঃখ ভরা আকুলতার শরীরে খোঁজে আকুতির ছাপ! কি হবে এতো জীবনোচ্ছ্বাস দিয়ে? যদি জীবনের কোন সঠিক স্তর না থাকে?

কতিপয় আহত ব্যথাতুর হৃদয়কে খুব কাছ থেকে অনুভব করে দুঃখকে নানাভাবে সুখে পরিনত করাতেই নাকি জীবনের মূল্যায়ন!

ভাবতে হয়তো অবাক লাগে সুখেরকাঁটার অপর নাম নাকি দুঃখ নিকুঞ্জ!

অস্পর্শ কোন ইঙ্গিত নাকি দুঃখের নকশি কাঁথা; কাব্য ছড়ায় দিগন্ত পর দিগন্ত জুড়ে!

হেরে যাওয়া কোন অতৃপ্ত আত্মার আর্তনাদ শুনতে নারজ এ মন!

তবুওতো জীবন থেমে থাকে না; পুরনো স্মৃতি গ্রাস করে বর্তমান!

জীবনের প্রয়োজনে বেঁচে থাকা অর্থহীন হলেও এটাই নাকি সুখের আবাদ!

দুঃখ বিলাসী রমনীর সুখ নাকি হাজারো দুঃখের মাঝে ডানা ঝাপটে আছড়ে পড়ে একান্ত সমুদ্র তটে!

ঝিনুকের মুক্তো আহরণে মেলে বেশ খানিকটা প্রশান্তির ছোঁয়া!

চিকন সুতোয় বুনে চলে রোজ প্রভাতের ক্লান্তি। আশা, তার সকল দুঃখ বুঝি ধরা দেবে সুখের বাসর হয়ে চাঁদনী পশর কোনো রাতে!

আঁখি বন্ধ করে শুধু অনুভব করতে যেটুকু বিলম্ব!

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here