ফুল ফুটুক আর না ফুটুক আজ বইছে বসন্তের বাতাস

0

সময় সংবাদ বিডি-ঢাকা:ফুল ফুটুক আর না ফুটুক,আজ বসন্ত। বসন্ত নতুন সাজে প্রকৃতি মুখরিত হয়েছে আজকের দিন। ফুল ফোটার পুলকিত সময়। শীতের জরাগ্রস্ততা কাটিয়ে নতুন পাতায় ঋদ্ধ হয়ে উঠেছে রুক্ষ প্রকৃতি। ফাগুনের ঝিরঝিরে বাতাসে কোকিলের মিষ্টি কলতানে উন্মাতাল হয়েছে প্রকৃতি। ফুলেল বসন্ত যৌবনের উদ্দামতা বয়ে এনেছে তরুণ-তরুণীদের মনে আনন্দ।

শুক্রবার দুপুরের পর থেকেই শাহবাগ, টিএসসি মোড় সহ, রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় ছিল আনন্দ উল্লাসে মুখরিত। বসন্তের বাতাসে উচ্ছ্বাসমুখরতায় পরিবেশ ছিল রাজধানীর বেশ কিছু জায়গায়ও।

ঋতুরাজ বসন্তের বন্দনা করতে গিয়ে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বলেছেন,আজি বসন্ত জাগ্রত দ্বারে।/তব অবগুণ্ঠিত কুণ্ঠিত জীবনে/কোরো না বিড়ম্বিত তারে। আর কবি সুভাষ মুখোপাধ্যায় বসন্ত উপলব্ধি করেছেন এভাবে—ফুল ফুটুক আর না ফুটুক/আজ বসন্ত। হ্যাঁ, গাছের শাখার শাখায় রঙিন ফুলের পসরা সাজিয়ে, ঝরিয়ে দিয়ে মলিন পাতার রাশি, আজ শুক্রবার আবার এলো পহেলা ফাল্গুন, আজ ঋতুরাজ বসন্তের প্রথম দিন।

প্রকৃতির মতোই শিল্প-সাহিত্য বসন্ত বাঙালি জীবনে তাৎপর্যময়। এ বসন্তেই ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে বাঙালির স্বাধীনতার বীজ রোপিত হয়েছিল। বসন্তেই বাঙালির মুক্তিযুদ্ধের শুরু। বসন্তের আগমনবার্তা নিয়ে আসে ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি’ ও ‘অমর একুশে গ্রন্থমেলা’।

কচি পাতায় আলোর নাচনের মতোই বাঙালির মনেও লাগে বসন্তের দোলা। উৎসবে মেতে ওঠে নগরবাসী। ফুলের মঞ্জরিতে মালা গাঁথার দিন বসন্ত শুধু প্রকৃতিকেই রঙিন করেনি, আবহমানকাল ধরে বাঙালি তরুণ-তরুণীর প্রাণও রঙিন করেছে।

তাই আজ পহেলা ফাল্গুনের সুরেলা এ দিনে তরুণীরা খোঁপায় গাঁদা-পলাশ ফুলের মালা গুঁজে বাসন্তী রং শাড়ি পরবে আর ছেলেরা পাঞ্জাবি-পায়জামা কিংবা ফতুয়ায় খুঁজে নেবে শাশ্বত বাঙালিপনা।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here