মাদ্রাসার খাবারে কীটনাশক, অসুস্থ্য-১৫ শিক্ষার্থী

0


kitnashok

আকতার হোসেন, সময় সংবাদ বিডি-

কুমিল্লাঃ কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে খাবারে কীটনাশক মিশিয়ে মাদ্রাসার শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের হত্যার চেষ্টা করেছে দুর্বৃত্তরা।  এ ঘটনায় ১৫জন শিক্ষার্থী অসুস্থ্য হয়ে পড়ে। তবে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের দাবি ওই বিষাক্ত খাবার খেয়ে ৮০জন শিক্ষক-শিক্ষার্থী অসুস্থ্য হয়ে পড়ে।

শনিবার রাতে উপজেলার তিলিপ দ্বীনিয়া মাদ্রাসা ও হেফজ্ খানায় এ ঘটনা ঘটে।

মাদ্রাসার দায়িত্বে থাকা মাও. রুহুল আমিন জানায়, শনিবার রাতে এশার নামাজ পড়তে গেলে দুর্বৃত্তরা জানালা দিয়ে চুলার ওপর থাকা তরকারিতে কীটনাশক মিশিয়ে দেয়। রাত সাড়ে ৯টার দিকে রাতের খাবার খেতে গিয়ে কিছু ভাত-তরকারি খাওয়ার পর শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা বিষক্রিয়া আক্রান্ত হয়ে চিৎকার শুরু করে। বিষয়টি দেখে কর্তব্যরত হোস্টেল সুপার আবদুল আলিম শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের খাবারগুলো খেতে নিষেধ করে এবং আশেপাশের লোকজন এসে তাদের উদ্ধার করে বিষক্রিয়ায় আক্রান্তদের স্থানীয় ভাবে প্রাথমিক চিকিৎসা দেন।

পরে গুরুতর অসুস্থ্য অবস্থায় ১৫ শিক্ষার্থীকে নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। এদের মধ্যে আছেম বিল্লাহ, মোস্তফা কামাল, শাহিন আলম, সাইফুল ইসলাম, রবিউল ইসলাম, আরাফাত হোসেন, সালমান রহমান, আরমান হোসেন, খলিলুর রহমান, আবদুর রহিম ও আরিফ হোসেন চিকিৎসা শেষে মাদ্রাসায় ফিরে যায়।

এছাড়া স্বাভাবিক অবস্থার অবনতি ঘটলে জেলার লাকসাম উপজেলার মোহাম্মদপুর গ্রামের আবুল বাশারের ছেলে শরীফুল ইসলাম (১২), একই গ্রামের ইব্রাহিম খলিলের ছেলে রবিউল ইসলাম (১৫) এবং নাঙ্গলকোট উপজেলার কেন্দ্রা গ্রামের নুরুল ইসলামের ছেলে আবদুল হালিম (১৩)কে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে।

মাদ্রাসার হোস্টেল সুপার মাও. আবদুল আলিম জানান, একটি কুচক্রীমহল মাদ্রাসার সুনাম নষ্ট করার উদ্দেশ্যে এমন নেক্কারজনক ঘটনা ঘটিয়েছে। আমরা এ ঘটনার সুষ্ঠ বিচার দাবি করছি।

নাঙ্গলকোট থানার ওসি (তদন্ত) সালাউদ্দিন আল মাহমুদ রবিবার ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের জানান, খাবারে বিষক্রিয়া হয়ে এসব শিক্ষক-শিক্ষার্থী অসুস্থ্য হতে পারে এবং নাশকতার উদ্দেশ্যেও এ ঘটনা ঘটতে পারে। ঘটনটি গুরুত্বের সহিত তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here