যেভাবে পূর্ব রাজাবাজার এলাকায় লকডাউন কার্যকর করা হয়েছে

0


সময় সংবাদ বিডি ঢাকা:করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে মঙ্গলবার রাত ১২টা থেকে রাজধানীর পূর্ব রাজাবাজার এলাকা লকডাউন করা হয়েছে। এ এলাকায় বেসামরিক প্রশাসনকে সহায়তা করতে সেনা টহল জোরদার করা হয়েছে।

ইতিমধ্যে পূর্ব রাজাবাজার এলাকায় প্রবেশের ৮টি গেটের মধ্যে ৭টিকে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। আর ফার্মগেট থেকে পান্থপথ মোড়ে যাওয়া সংযোগ সড়কে অবস্থিত আইবিএ হোস্টেলের পাশের গেটটিতে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা অবস্থান নিয়েছেন। আর এলাকার ভেতরে ফার্মেসি ছাড়া আর কিছু খোলা থাকছে না।

কিভাবে কার্যকর করা হবে এই লকডাউন, সে প্রসঙ্গে ঘটনাস্থল থেকে অপারেশনটির দায়িত্বে থাকা মেজর মুশফিক সাংবাদিকদের বলেন, সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক বিভিন্ন সংস্থার সহযোগিতায় বাংলাদেশ সেনা বাহিনী এই রেড জোনকে কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণের জন্য সব রকম প্রস্তুতি নিয়েছে। পূর্ব রাজাবাজার এলাকাকে স্পেশালভাবে লকডাউন করা হয়েছে।

তাই আমরা এই এলাকায় সার্বক্ষণিক টহল দেব। এলাকার নিরাপত্তা নিশ্চিত করব। বাইরে থেকে এই এলাকায় প্রবেশ ও এলাকা থেকে বাসিন্দাদের বের হওয়া সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। পাশাপাশি এলাকার ভেতরের বাসিন্দারা যে কোনো সাহায্য চাইলে আমরা তার দেখভাল করব।তিনি বলেন, মঙ্গলবার রাতে সেনা বাহিনীর দুটো পেট্রোল পূর্ব রাজাবাজার ও শের-ই-বাংলা নগরে টহল দেবে।

লকডাউনের বিষয়ে ঘটনাস্থল থেকে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (তেজগাঁও-জোন) রুবাইয়াত জামান বলেন, প্রাথমিকভাবে ১৪ দিন থেকে ২১ দিন লকডাইন থাকবে এই এলাকা। পরিস্থিতি বুঝে লকডাউনের মেয়াদ বাড়ানো হবে বা তুলে নেয়া হবে।

তিনি বলেন, এলাকায় রাস্তা সরু হওয়ায় লকডাউন চলাকালীন মোটরসাইকেলে ও পায়ে হেঁটে ২৪ ঘণ্টা টহল দেবে পুলিশ।

স্থানীয়দের দৈনন্দিন সেবার বিষয়ে তিনি বলেন, এলাকার বাসিন্দাদের মৌলিক চাহিদাসহ সব ধরনের মানবিক সেবার বিষয়টি নিশ্চিত করতে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ওয়ার্ড কাউন্সিলরের ওপর দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তিনি বিষয়টির দেখভাল করবেন। স্থানীয়দের কারও করোনা উপসর্গ দেখা দিলে বা করোনা পরীক্ষার প্রয়োজন পড়লে এখানে তার ব্যবস্থা করা হবে। এছাড়াও অন্যান্য সব স্বাস্থ্যসেবাও নিশ্চিত করা হবে।

তিনি বলেন, শুধুমাত্র এই এলাকায় বসবাসরত স্বাস্থ্যসেবায় জড়িত চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী ও সাংবাদিকরা বাইরে বের হতে পারবেন। এছাড়া আর কাউকে বাইরে বের হতে দেয়া হবে না। জানা গেছে, মঙ্গলবার পর্যন্ত প্রায় ৫০ হাজার বাসিন্দার পূর্ব রাজাবাজার এলাকায় করোনা রোগীর সংখ্যা ২২৪ জনে দাঁড়িয়েছে।

যে কারণে গত সোমবার এলাকাটিকে রেড জোনের আওতায় নিয়ে লকডাউনের সিদ্ধান্ত নেয় ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি)। ডিএনসিসির মেয়র আতিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে করোনাভাইরাস প্রতিরোধ ও মোকাবেলার লক্ষ্যে ডিএনসিসি এলাকার জন্য গঠিত কমিটির ভার্চুয়াল সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

পরে লকডাউনের নিয়ম-কানুনের ব্যাপারে জানানো হয়, লকডাউন চলাকালে সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে। জনগণের চলাচল অত্যন্ত সীমিত রাখা হবে। এ সময় পূর্ব রাজাবাজার এলাকায় বসবাসরত লোকজন বাইরে যেতে পারবেন না এবং বাইরের লোকজন ভেতরে প্রবেশ করতে পারবেন না। নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্য ও চিকিৎসা সামগ্রী অনলাইনের মাধ্যমে ক্রয় করা যাবে, যা বাসায় পৌঁছে দেয়া হবে।

যাদের অনলাইন সুবিধা নেই, নগদ অর্থে খাদ্যসামগ্রী ক্রয় করতে চান তাদের জন্য দু-একটি শাক-সবজি, মাছ-মাংসের ভ্যান, ভ্যানচালক ও পণ্যসামগ্রী সম্পূর্ণ জীবাণুমুক্ত করে ভেতরে প্রবেশ করানো হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here