শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে প্রস্তুত কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার

0


সময় সংবাদ বিডি-ঢাকা: বাঙালির এই অকুতোভয় ভাষা সৈনিকদের শ্রদ্ধা জানাতে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। দেয়াল লিখন, আলপনা ও দেয়াল চিত্রে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার এলাকায় ফুটে ওঠেছে ১৯৫২ সালের সেই কঠিন দিনগুলোর আবহ।

এইদিকে শুক্রবার (২১ ফেব্রুয়ারি) প্রথম প্রহরেই কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাবেন রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, বিরোধী দলীয় নেত্রী, কূটনৈতিকসহ সর্বস্তরের মানুষ।

বৃহস্পতিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) সকালে শহীদ মিনার এলাকা ঘুরে দেখা যায়, পুরো শহীদ মিনারকে নিরাপত্তা বেস্টনীর মধ্যে নিয়ে আসা হয়েছে। র‌্যাব ও ডিএমপির পক্ষ থেকে বসানো হচ্ছে ‘ওয়াচ টাওয়ার’। যে কোনোধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সতর্ক অবস্থানে রয়েছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি র‌্যাব ডগ স্কোয়াড দিয়ে পুরো এলাকা তল্লাশি করেছে।

সমগ্র এলাকাকে সিসিটিভি ক্যামেরার আওতায় এনে জনসাধারণকে সতর্ক করতে লাগানো হয়েছে ডিজিটাল সাইনবোর্ড। কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের ডান পাশে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজী মোতাহার হোসেন ভবন সংলগ্ন মাঠে র‌্যাব, ডিএমপি ও ফায়ার সার্ভিসের কন্ট্রোল রুম বসানো হয়েছে।

অপরদিকে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের মূল বেদীসহ সম্মুখভাগে শেষ হয়েছে আলপনা আঁকার কাজ। এবারই প্রথম শহীদ মিনারের বামপাশের দেওয়ালে ভাষা আন্দোলনের বিভিন্ন চিত্রপট নিয়ে রংতুলি দিয়ে আঁকা হয়েছে অসাধারণ দেয়ালচিত্র। মূল বেদীর ঠিক বিপরীতে বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক ভবনের দেয়ালে লাল রং-এ লেখা হয়েছে ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভুলিতে পারি’।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান,কাজী নজরুল ইসলাম,সুকান্ত ভট্টাচার্য,শামসুর রহমান, আবুল ফজল,ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত,জসীম উদ্‌দীন,আবু জাফর ওবায়দুল্লাহ, মুনীর চৌধুরী,রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর,জীবনানন্দ দাশ, দীজেন্দ্রলাল রায়,আবুল মনসুর আহমদ, মুহম্মদ শহীদুল্লাহ,অতুলপ্রাসাদ সেন, মাইকেল মধুসূদন দত্তসহ বিখ্যাত মনিষীদের ভাষা নিয়ে বিভিন্ন উক্তি,উল্লেখ করে অঙ্কনের কাজ ও ওয়াল পেইন্টিং সম্পাদন করা হয়েছে ।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো:আখতারুজ্জামান,ডিএমপি কমিশনার শফিকুল ইসলাম,র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ শহীদ মিনার এলাকা পরিদর্শন করেছেন। ঢাবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো:আখতারুজ্জামান মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের ভাবগাম্ভীর্য বজায় রাখার জন্য ছাত্র,শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ সর্বস্তরের জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

বিগত বছরগুলোর মতো এবারও শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস-২০২০ সুষ্ঠুভাবে পালনের জন্য কেন্দ্রীয় সমন্বয় কমিটি গঠন করা হয়েছে। সমন্বয় কমিটি গৃহীত সব কর্মসূচির সফল বাস্তবায়নে তিনি সংশ্লিষ্ট সবার সর্বাত্মক সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন।

জনসাধারণের নিরাপত্তার স্বার্থে,শহীদ মিনারের বেদী কেন্দ্রীক প্রথম স্তর,শহীদ মিনারের বাইরে দ্বিতীয় স্তর,দোয়েল চত্বর-শাহবাগ-নীলক্ষেত-পলাশী-বকশীবাজার কেন্দ্রীক তৃতীয় স্তর ও এর বাইরে আরেক স্তর। এর মাধ্যমে শহীদ মিনারকে ঘিরে মোট চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা করেছেন,
ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here