সাবেক ছাত্রনেতার মুল্যায়ন নিয়ে ফেসবুকে আবেগঘন স্ট্যাটাস!

0


ডেস্ক নিউজ, সময় সংবাদ বিডি-
ঢাকাঃ বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক ছাত্রনেতাদের দলীয় মুল্যায়ন সঠিকভাবে হচ্ছেনা বলে আবেগাপ্লুত হয়েছেন অনেকেই। তবে সম্প্রতি সাবেক এক ছাত্রনেতা বাংলাদেশ আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের দলীয় পদে জায়গা নিয়ে গ্রুপিংয়ের শিকার বলে দাবি করেছেন।

এমনকি, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তার নিজ আইডি থেকে আবেগঘন স্ট্যাটাসও দিয়েছেন। তিনি যা লিখেছেন হুবহু তুলে দেওয়া হলোঃ-

(আমি অনেক টাকার মালিক নই,আমি অতি সাধারন মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান, তাই বলে কি সংগঠনে আমি যোগ্যতম সম্মান পাবো না!!!!
তাহলে ১৯৮৯ সাল হতে থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত স্বৈরাচার এরশাদ সরকার বিরোধী আন্দোলন, বিএনপি জামাত সরকার বিরোধী আন্দোলন, মইনুদ্দিন-ফকরুদ্দিন হঠাও আন্দোলন সহ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দুর্দিনে অত্যাচার,নির্যাতন সহ্য করে রাজপথে আন্দোলন সংগ্রাম করেছি।

২০০৩ সালে বিএনপি জামাত জোট সরকারের সেনাবাহিনী দ্বারা আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী নিধনে শুধু মাত্র ততকালীন ঢাকা গুলশান থানাধীন সাতারকুল ইউনিয়ন ৩ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক পদে থেকে রাজপথে হরতাল অবরোধ কর্মসূচিতে নেতৃত্ব দেয়ায় সেনাবাহিনীর অবৈধ ক্লিন হার্টে বাড়ি থেকে আমাকে চোখ মুখ, হাত বেঁধে গ্রেফতার করে বসুন্ধরা সেনাক্যাম্পে নিয়ে শারীরিক নির্যাতন করা হয়েছিলাম।সেই শারীরিক নির্যাতনের যন্ত্রণা, কষ্ট আজো বয়ে বেড়াচ্ছি। হয়তো মা বাবার ও সাধারণ মানুষের দোয়ায় সেদিন প্রানে বেঁচে ফিরেছিলাম। সংগঠনের জন্য দলের সভানেত্রীর নির্দেশনা পালন করতে গিয়ে যে নির্যাতন ভোগ করেছিলাম তার মূল্য আমাকে কে দেবে….কে দেবে..? কার কাছে পাবো আমার এই প্রশ্নের উত্তর ???

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু তো তার রাজনৈতিক জীবদ্দশায় টাকার পিছে মনযোগ দেন নি। হাজারও অর্থ কষ্টের মাঝেও তিনি এদেশের গরীব দূঃখি মেহনতী মানুষের মুখে হাসি ফুটাতে চেয়েছিলেন।আমরা তো তার আদর্শই বুকে ধারণ করে রাজনীতিতে এসেছিলাম। এখনো তার আদর্শ নীতি অনুস্বরন করে রাজনীতি করছি।
আজ অবধি প্রিয় সংগঠন আওয়ামী লীগের সকল রাজনৈতিক, সামাজিক সকল কর্মকান্ডে নিয়মিত অংশ গ্রহন করে যাচ্ছি।

শেখ হাসিনার ভয় নাই -রাজপথ ছাড়ি নাই, এক মুজিব লোকান্তরে, লক্ষ মুজিব ঘরে ঘরে, জয়বাংলা জয়বঙ্গবন্ধু –

শ্লোগান দিতে দিতে আর রাজপথে থাকতে থাকতে ভুলেই গিয়েছিলাম জীবনে টাকা কামানোটাও দরকার আছে। আমারও যে একটা পরিবার আছে!!!আমারও একটা ভবিষ্যৎ আছে। আমার মতো সারা দেশে লক্ষ কোটি নেতাকর্মী আছে যারা টাকা পয়সা কামাতে চাইনা, চাই একটু ভালোবাসা, সংগঠনে জন্য ত্যাগের পুরস্কার।

প্রানের নেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মানবতার মা জননেত্রী শেখ হাসিনা আপনিই তো আল্লাহর পর আমাদের শেষ ভরসা। আপনিই বলে দেন আমরা সাধারণ কর্মীরা কোথায় যাবো??? কার কাছে চাইবো? কার কাছে পাবো??
আমরা চাইলেইতো প্রিয় সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কে ভুলে থাকতে পারবো না, পারি না, আমৃত্যু পারবোও না।)

এস এম সিদ্দিকী মামুন
সাবেক ছাত্রলীগ কর্মী,
সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক
বাংলাদেশ আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগ
কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি এবং সদস্য সচিব (দায়িত্ব প্রাপ্ত) ঢাকা মহানগর উত্তর।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here