স্মরণ ও শ্রদ্ধায় আলহাজ্ব সিরাজ উদ দৌলা

0


আগামীকাল ২২ মে, ২০২০ যাঁর নবম মৃত্যুবার্ষিকী, মোহাম্মদী গ্রুপ অব কোম্পানিস লিঃ এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান মরহুম আলহাজ্ব সিরাজ উদ দৌলা নোয়াখালী জেলার কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় ১৯৪৮ সালে জন্ম গ্রহণ করেন। তার শিক্ষাকাল কেটেছে গ্রামের বাড়িতে।

গ্রাজুয়েশন করার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এল,এল,বি ডিগ্রি লাভ করেন এবং আইন পেশায় নিয়োজিত হন। পরবর্তীতে নিজেকে জনসাধারণের সেবা করার লক্ষ্যে তিনি ১৯৭৯ সালে রাজধানী মোহাম্মদপুরে “মোহাম্মদী হাউজিং লিমিটেড ” নামে একটি আবাসিক প্রকল্পের কাজ শুরু করেন। এরপর ১৯৮৫ সালে গার্মেন্টস ব্যবসা শুরু করার জন্য বর্তমানে ঢাকা উওর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল হক , ফারুক ও হাবিবুর রহমান গংরা পরামর্শ দেন। তাদের পরামর্শ অনুযায়ী লালবাগ কেল্লা সামনে অবস্হিত “ মোহাম্মদী আ্যাপারেলস লিমিটেড” এই ফ্যাক্টরিটি গড়ে তোলেন। পুরো টাকা বিনিয়োগ করেন সিরাজ উদ দোলা। আনিসুল হক, ফারুক ও হাবিব পাটনার হিসাবে ফ্যাক্টরী টি পরিচালনা শুরু করেন। ধীরে ধীরে মোহাম্মদী গ্রুপ বিশ্বব্যাপী স্বীকৃতি লাভ করে আনিসুল হকের কঠোর পরিশ্রমে।

সিরাজ উদ দোলা বাংলাদেশের ইসলামী ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠার অন্যতম প্রবক্তা। তিনি ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিঃ এর উদ্যোক্তা পরিচালক ছিলেন। এ ছাড়া ও তিনি আল আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংক লিঃ এর উদ্যোক্তা পরিচালক ছিলেন। তিনি বাংলাদেশ তাবলীগ জামাতের একজন আমির ছিলেন। তিনি বেশিভাগ সময় দ্বীনের কাজে ব্যয় করতেন। তিনি ১৯৮১ সালে ইরাক ইরান যুদ্ধের সময় বিশিষ্ট বুজুর্গ হযরত মাওলানা মোহাম্মদ উল্লাহ হাফেজ্জী (রহঃ)এর সফরসঙ্গী হিসেবে শান্তি আলোচনার জন্য ইরান গিয়েছিলেন। এছাড়া তিনি ইসলামের দাওয়াত নিয়ে বিশ্বের প্রায় অধিকাংশ দেশই সফর করেন।

ব্যক্তিগত জীবনে তিনি খুব ধার্মিক ও ধর্মীয় মানুষ ছিলেন । তিনি দেশব্যাপী অসংখ্য স্কুল কলেজ মসজিদ ,মাদ্রাসা, এতিমখানা, ইসলামী গবেষনা কেন্দ্র ও হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করেন। তাঁর ই অর্থায়ানে গড়ে উঠে মোহাম্মদপুরে অবস্থিত “মোহাম্মদপুর কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ” ও ঢাকা বয়েজ কলেজ।
১৯৭৫ সালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমান নিহত হওয়ার পর মরহুম সিরাজ উদ দৌলার বাল্যবন্ধু সহপাঠী সড়ক ও সেতু মন্ত্রী ওবায়েদুল কাদের এর সেই সংকটময় মূহুর্ত তার বাসভবনে আশ্রয় দেন । তার আশ্রয় রাখার কিছুদিন পর ওবায়েদুল কাদের কে তিনি নিজে নোয়াখালী কোম্পানিগজ্ঞে নিরাপদ আশ্রয়ে রেখে আসেন।

আজ থেকে প্রায় বিশ বছর আগে বিশিষ্ট শিল্পপতি হাজী সিরাজ-উদ-দৌলার মাধ্যমে ঢাকা এয়ারপোর্টে কাষ্টামস্ হাউজের পাশে সিভিল এভিয়েশন মসজিদ থেকে ইস্তেকবালের কার্যক্রম শুরু হয়।মোহাম্মাদী হাউজিং লিঃ ও মোহাম্মাদী গ্রুপ অব কোম্পানীজের স্বত্বাধিকারী এ দানবীরের পুুুরো জীবনটাই জুড়ে আছে এ মসজিদের সঙ্গে।
এ মসজিদেই তিনি ২০১১ সালের ২২ মে ফজর নামাজের পর ত্যাগ করেন জীবনের শেষ নিঃশ্বাস।তাঁর আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি। আল্লাহ উনাকে জান্নাতুল ফেরদৌস দান করুন এই দোয়া করি।
(আমিন)

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here