হরতাল অবরোধে শঙ্কায় রপ্তানিকারকরা

0


epb-logo
স্টাফ রিপোর্টার, সময় সংবাদ বিডি-
ঢাকাঃ দেশে চলমান হরতাল অবরোধে রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ নিয়ে শঙ্কায় রপ্তানিকারকরা। চলতি ২০১৪-১০১৫ অর্থ বছরের এক-তৃতীয়াংশ সময় পেরিয়ে গেলেও রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হয়েছে মাত্র ৬১ দশমিক ১৮ শতাংশ। এদিকে গত জানুয়ারি মাসের তুলনায় রপ্তানি আয় কমেছে প্রায় ১৩ শতাংশ।
রফতানি এই প্রবৃদ্ধি কমার জন্য অনেকে রাজনৈতিক অস্থিরতাকে দায়ি করলেও রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) বলছে ভিন্ন কথা। এতো প্রতিকুল অবস্থার মধ্যেও লক্ষ্যমাত্রা পূরণে আশাবাদের কথা শুনিয়েছে রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) কর্তা ব্যক্তিরা।
তবে ইপিবির এ আশাবাদ নিয়ে সন্দেহ পোষণ করছেন রপ্তানিকারকরা। তাদের আশঙ্কা, দেশের সামগ্রিক পরিস্থিতির উন্নতি না হলে রপ্তানিতে বিপর্যয় নেমে আসতে পারে।
ইপিবির পরিসংখ্যান অনুযায়ী, চলতি অর্থবছরে জুলাই-ফেব্রুয়ারি সময় পর্যন্ত রপ্তানি আয় হয়েছে ২ হাজার ৩১ কোটি মার্কিন ডলার, যা ওই সময়ের জন্য কৌশলগত লক্ষ্যমাত্রা ২ হাজার ১২৮ কোটি মার্কিন ডলারের চেয়ে ৪ দশমিক ৫৬ শতাংশ কম। এর মধ্যে শুধু ফেব্রুয়ারিতে রপ্তানি আয় হয়েছে ২৫১ কোটি ২৪ লাখ মার্কিন ডলার। অথচ গত জানুয়ারিতেও ২৮৮ কোটি ৫১ লাখ মার্কিন ডলারের রপ্তানি আয় হয়েছিল।
চলতি অর্থবছরের জন্য ইপিবি রপ্তানি আয়ের মোট লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছিল ৩ হাজার ৩২০ কোটি মার্কিন ডলার। সেই হিসাবে টার্গেট পুরণ করতে হলে বাকি চার মাসে আরও ১ হাজার ২৮৯ মার্কিন ডলার আয় করতে হবে। এজন্য প্রতিমাসে গড়ে ৩২২ কোটি মার্কিন ডলারের বেশি রপ্তানি আয় করতে হবে, যা চলতি অর্থবছরের কোনো মাসেই অর্জন করা সম্ভব হয়নি। তাই বলতে গেলে লক্ষ্যমাত্রা পুরণ একপ্রকার অসম্ভব বলে মনে করছেন ব্যবসায়ীরা।
তবে আশা ছাড়ছে না ইপিবি। জানুয়ারির তুলনায় ফেব্রুয়ারিতে রপ্তানি আয় কমার কারণ হিসেবে রাজনৈতিক অস্থিরতা নয় বরং আন্তর্জাতিক বাজার দর দায়ী বলে জানান তিনি।
তবে রপ্তানিকারকরা ইপিবির নির্বাহীর এ দাবির সাথে ভিন্নমত পোষণ করছেন। তারা জানান, রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণেই সামগ্রিকভাবে রপ্তানি কমছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here